অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

টিকা কর্মসূচির আভাস দিয়েছে উত্তর কোরিয়া, তবে বিস্তারিত তথ্য নেই


উত্তর কোরিয়া সরকারের দেওয়া এই ছবিতে দেখা যাচ্ছে, উত্তর কোরিয়ার রাজধানী পিয়ংইয়ং-এ এক “সর্বোচ্চ জরুরি মহামারী বিরোধী কর্মসূচি বৈঠক” এ বক্তব্য রাখছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন, ১০ আগস্ট ২০২২। (ফাইল ফটো)

উত্তর কোরিয়া আভাস দিয়েছে যে দেশটি শীঘ্রই কোভিড-১৯ এর টিকাদান আরম্ভ করতে পারে। তবে এ বিষয়টি পরিষ্কার নয় যে কোন টিকা ব্যবহার করা হবে, সেগুলো কোথা থেকে সংগ্রহ করা হবে, বা কয়টি ডোজ দেওয়া হবে।

দেশটির সংসদ বা সুপ্রিম পিপল’স অ্যাসেম্বলিতে গত সপ্তাহে এক ভাষণ দেওয়ার সময়ে কথাচ্ছলে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন এমন ইঙ্গিত করেছেন বলে মনে হয়েছে যে নভেম্বরে কোভিড-১৯ এর একটি টিকাদান কর্মসূচি আরম্ভ করা হবে।

শীতকালে কোভিড-১৯ ও ইনফ্লুয়েঞ্জার সম্ভাব্য পুনরাবির্ভাবের বিষয়ে সতর্ক করে কিম বলেন, “দায়িত্বশীলভাবে টিকা প্রয়োগকালীন সময়ে আমাদের সুপারিশ হওয়া উচিৎ যাতে সকল বাসিন্দা নভেম্বর থেকে নিজেদের স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য মাস্ক পরে।”

ভাইরাসটির বিরুদ্ধে তিনি বিজয় ঘোষণা করার মাত্র একমাসেরও কম সময় পর এমন সতর্কবার্তা দিলেন কিম। বিজয় ঘোষণার সময় তিনি উত্তর কোরিয়ার কঠোর মহামারী প্রতিরোধী পদক্ষেপগুলোর বেশিরভাগই শিথিল করেছিলেন।

উত্তর কোরিয়া বারবার কোভ্যাক্স থেকে টিকার প্রস্তাব অগ্রাহ্য করেছে। কোভ্যাক্স হল টিকা বিতরণের জন্য জাতিসংঘ সমর্থিত একটি প্রচেষ্টা। এমনকি কিমের সর্বসাম্প্রতিক মন্তব্যের পরও, এমন কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি যে, উত্তর কোরিয়া গ্যাভির কাছ থেকে টিকা পাওয়ার জন্য কোন অনুরোধ জানিয়েছে। গ্যাভি হল টিকা বিষয়ক এক বৈশ্বিক জোট, যারা কোভ্যাক্স পরিচালনা করতে সহায়তা করে।

কোন অনুরোধ জানানো হয়েছে নাকি তা নির্দিষ্ট করে না জানিয়ে, গ্যাভির এক মুখপাত্র ভিওএ-কে বলেন, “ডিপিআরকে যদি নিজেদের কোভিড-১৯ টিকা (কর্মসূচি) আরম্ভ করতে আমাদের সহায়তার অনুরোধ করে, (তাহলে) আমরা খুশি মনে তাদের টিকার ডোজ দিব, যেভাবে আমরা অপর আরও ১৪৬টি দেশকে দিয়েছি – এখনও পর্যন্ত ১৭০ কোটিরও বেশি ডোজ।” উত্তর কোরিয়ার আনুষ্ঠানিক নাম, ডেমোক্রেটিক পিপল’স রিপাবলিক অফ কোরিয়া’র সংক্ষিপ্ত রূপ হল ডিপিআরকে।

XS
SM
MD
LG