অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

গণবিধ্বংসী অস্ত্র ব্যবহারে পুতিনকে বাইডেনের সতর্কীকরণ: করবেন না, করবেন না, করবেন না


ফাইল ছবি: হোয়াইট হাউজে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন একটি সাক্ষাতকার দিচ্ছেন , জুন ১৬, ২০২২

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আবারও রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনকে ইউক্রেনে গণবিধ্বংসী অস্ত্র (ডাব্লুএমডি) ব্যবহারের বিরুদ্ধে সতর্ক করেছেন।

রবিবার রাতে প্রচার হবার কথা সিবিএস নিউজের সাথে তিনি এমন একটি সাক্ষাত্কারে বলেন, "করবেন না। করবেন না। করবেন না। যদি করেন, তাহলে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে আপনি যুদ্ধের চেহারা পরিবর্তন করে ফেলবেন।"

রাশিয়া ইউক্রেনে রাসায়নিক বা পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করলে, বাইডেন যুক্তরাষ্ট্রের সুনির্দিষ্ট প্রতিক্রিয়া সম্পর্কে কোন মন্তব্য করেননি। ।

এটি পুতিনের প্রতি বাইডেনের প্রথম সতর্ক বার্তা ছিল না: গত মার্চ মাসে ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং জি-৭ অংশীদার এবং নেটো মিত্রদের সাথে বৈঠকের পরে, বাইডেন বলেছিলেন, নেটো ইউক্রেনে ডাব্লুএমডিগুলির যে কোনও ব্যবহারের জন্য "যে কোনো ধরণের " প্রতিক্রিয়া জানাবে।

এর আগে, রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ দেশটির রাষ্ট্রীয় টেলিভিশনকে বলেছিলেন, পারমাণবিক যুদ্ধের ঝুঁকি "বিবেচ্য"। তার এই মন্তব্যের এক মাস পর, বাইডেন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভকে "দায়িত্বজ্ঞানহীন" বলে অভিহিত করেন।

বাইডেন বলেন, "পারমাণবিক অস্ত্রের ব্যবহার বা সেগুলি ব্যবহারের প্রয়োজনীয়তার সম্ভাবনা সম্পর্কে কারও অনাবশ্যক মন্তব্য করা উচিত নয়।"

ইউক্রেনে তার আক্রমণের মাত্র কয়েক দিন আগে, পুতিন সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পর প্রথমবারের মতো রাশিয়ার পারমাণবিক বাহিনীকে উচ্চ সতর্ক অবস্থায় থাকার নির্দেশ দিয়েছিলেন। ,

২০০০ সালে, রাশিয়া তার সামরিক মতবাদ হালনাগাদ করেছে। যুক্তরাষ্ট্র ভিত্তিক অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ এসোসিয়েশনের মতে "রাশিয়ান ফেডারেশনের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পরিস্থিতিতে প্রচলিত অস্ত্র ব্যবহার করে বৃহৎ আকারের আগ্রাসনের প্রতিক্রিয়ায়" পরমাণু অস্ত্রের প্রথম ব্যবহারের অনুমতি দেয়। মতবাদের ১৯৯৭ সংস্করণটি শুধুমাত্র "রাশিয়ান ফেডারেশনের অস্তিত্বের জন্য হুমকির ক্ষেত্রে" পারমাণবিক অস্ত্রের প্রথম ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছিল।

নতুন সংস্করণটি প্রথমবারের মতো বলেছে, “গণবধ্বংসী অস্ত্র” দিয়ে আক্রমণের প্রতিক্রিয়া জানাতে, রাশিয়ার পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের অধিকার রয়েছে।

এদিকে, জাপোরিঝিয়া পারমাণবিক কেন্দ্রকে রাশিয়ার লক্ষ্যবস্তু করায় ইউরোপ জুড়ে নতুন করে পারমাণবিক উদ্বেগ সৃষ্টি করেছে। আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থার (আইএইএ) মহাপরিচালক রাফায়েল মারিয়ানো গ্রসি শনিবার জানিয়েছেন, ইউরোপের বৃহত্তম প্ল্যান্টটি আবারও জাতীয় গ্রিড থেকে বিদ্যুৎ পাচ্ছে।

গ্রসি সতর্ক করে দিয়ে বলেন, যতক্ষণ রাশিয়ার বাহিনী জাপোরিজহিয়ার আশেপাশের বিস্তৃত অঞ্চলে গোলাবর্ষণ করছে, প্লান্টটির সাধারণ পরিস্থিতি অবশ্যই অনিশ্চিত।

আইএইএ বলেছে, পারমাণবিক কেন্দ্রটি রাশিয়ার নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, তবে ইউক্রেনীয়রা এর কার্যক্রম পরিচালনা করছে।



XS
SM
MD
LG