অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিক্ষোভকে 'কঠোরভাবে মোকাবিলা করতে' বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছে ইরান : অ্যামনেস্টি


তেহরানে মাহসা আমিনির সমর্থনে একটি বিক্ষোভ চলাকালীন মোটরবাইকে ইরানি ইসলামী প্রজাতন্ত্রের নৈতিকতা পুলিশদের দেখা যাচ্ছে ৷ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২।
তেহরানে মাহসা আমিনির সমর্থনে একটি বিক্ষোভ চলাকালীন মোটরবাইকে ইরানি ইসলামী প্রজাতন্ত্রের নৈতিকতা পুলিশদের দেখা যাচ্ছে ৷ ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল শুক্রবার বলেছে, ফাঁস হওয়া সরকারি নথিগুলি থেকে দেখা যাচ্ছে যে ইরান তার নিরাপত্তা বাহিনীকে এই মাসের শুরুতে শুরু হওয়া সরকারবিরোধী বিক্ষোভ "কঠোরভাবে মোকাবেলা করার" নির্দেশ দিয়েছে।

লন্ডন-ভিত্তিক অধিকার গোষ্ঠীটি বলেছে যে প্রায় দুই সপ্তাহ আগে নৈতিকতা পুলিশ কর্তৃক আটক একজন নারীর মৃত্যুর প্রতিবাদে বিক্ষোভ শুরু হওয়ার পর থেকে নিরাপত্তা বাহিনী কমপক্ষে ৫২ জনকে হত্যা করেছে । তারা ভিড়ের মধ্যে গুলি চালিয়েছে এবং বিক্ষোভকারীদের লাঠিপেটা করেছে।

অধিকার গোষ্ঠীটি বলেছে যে নিরাপত্তা বাহিনী, মাথার হিজাব খুলে ফেলা নারী বিক্ষোভকারীদেরও মারধর করেছে এবং ধাক্কা দিয়েছে। তারা ইরানের ধর্মতন্ত্রের কারণে নারীদের প্রতি আচরণের প্রতিবাদ করেছিল।

রাষ্ট্র-চালিত আইআরএনএ সংবাদ সংস্থা এদিকে পাকিস্তান ও আফগানিস্তানের সীমান্তবর্তী জাহেদান শহরে নতুন করে সহিংসতার খবর দিয়েছে। এতে বলা হয়, বন্দুকধারীরা একটি থানায় গুলি চালায় ও ফায়ারবোমা নিক্ষেপ করে এবং পুলিশের সাথে লড়াই শুরু করে।

বলা হয়েছে যে পুলিশ এবং পথচারীরা আহত হয়েছেন, বিশদ বিবরণ না দিয়ে এবং সহিংসতা সরকারবিরোধী বিক্ষোভের সাথে সম্পর্কিত কিনা তা ঐ প্রতিবেদনে বলা হয়নি। এই অঞ্চলটিতে আগেও জঙ্গি ও বিচ্ছিন্নতাবাদী গোষ্ঠীগুলি নিরাপত্তা বাহিনীর উপর হামলা করেছে বলে দাবি করে।

সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়া ভিডিওতে গোলা গুলি হতে দেখা গেছে এবং পুলিশের গাড়ি আগুনে জ্বলতে দেখা গেছে । অন্যদের সরকারের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে দেখা গেছে। ইরানের অন্য কোথাও থেকে ভিডিওতে দক্ষিণ-পশ্চিমে আহভাজ এবং উত্তর-পশ্চিমে আরদাবিলে বিক্ষোভ দেখানো হয়েছে।

মাহসা আমিনির হেফাজতে মৃত্যু হয়েছিল, যিনি বাধ্যতামূলকভাবে হিজাব খুব ঢিলেঢালাভাবে পরার অভিযোগে আটক হয়েছিলেন । এর ফলে ইরানের ক্ষমতাসীন ধর্মগুরুদের বিরুদ্ধে জনগণের মনে ক্ষোভের সঞ্চার হয়।

XS
SM
MD
LG