অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কাশ্মীর সংক্রান্ত সাম্প্রতিক পদক্ষেপের জন্য জার্মানি ও যুক্তরাষ্ট্রের সমালোচনা করেছে ভারত


জার্মানির বার্লিনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক (ডানদিকে), এবং পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি৷ ৭ অক্টোবর, ২০২২।
জার্মানির বার্লিনে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে একটি বৈঠকের পর সাংবাদিকদের সাথে কথা বলছেন জার্মানির পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক (ডানদিকে), এবং পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারি৷ ৭ অক্টোবর, ২০২২।

ভারত প্রতিবেশী এবং চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী পাকিস্তানের সাথে দীর্ঘদিন ধরে চলমান আঞ্চলিক বিরোধের সাথে সম্পর্কিত সাম্প্রতিক, কিন্তু বিরল কিছু পদক্ষেপের জন্য যুক্তরাষ্ট্র এবং জার্মানির তীব্র সমালোচনা করেছে।

ইসলামাবাদে ওয়াশিংটনের রাষ্ট্রদূত ডনাল্ড ব্লোম বিভক্ত হিমালয় অঞ্চলের কাশ্মীরের পাকিস্তান-শাসিত অংশে তিনদিনের সফরে গেলে ওই বিতর্কের সূত্রপাত হয়। পাকিস্তান তার নিয়ন্ত্রণাধীন এলাকাকে আজাদ (অর্থাৎ মুক্ত) জম্মু ও কাশ্মীর বা এজেকে বলে সম্বোধন করে থাকে।

যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস সেখানকার ঐতিহাসিক স্থানগুলি ভ্রমণের পর এক টুইট বার্তায় ব্লোম বলেছেন, "এজেকে-তে প্রথম বারের মতো পরিদর্শন করতে পেরে আমি সম্মানিত বোধ করছি,"

যুক্তরাষ্ট্রের ওই কূটনীতিক এজেকে-র ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের পাশাপাশি একাডেমিক, ব্যবসায়িক, সাংস্কৃতিক এবং সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। যুক্তরাষ্ট্র দূতাবাস পরে একটি আনুষ্ঠানিক বিবৃতিতে উল্লেখ করেছে, ব্লোমের সফরটি "যুক্তরাষ্ট্র-পাকিস্তান অংশীদারিত্বের প্রচার এবং দুই দেশের গভীর অর্থনৈতিক, সাংস্কৃতিক এবং জনগণের মধ্যে সম্পর্ককে তুলে ধরার জন্য করা হয়েছিল।"

নয়াদিল্লি যেটিকে ভারতের অবিচ্ছেদ্য অংশ বলে মনে করে এবং এটিকে পাকিস্তান-অধিকৃত কাশ্মীর হিসাবে উল্লেখ করে, সেখানে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের ভ্রমণের বিষয়টি বিরল ঘটনা।

ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রতিনিধি অরিন্দম বাগচি শুক্রবার এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, "পাকিস্তানে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূতের পাকিস্তান-অধিকৃত জম্মু ও কাশ্মীরে সফর এবং বৈঠকের বিষয়ে আমাদের আপত্তি যুক্তরাষ্ট্রকে জানানো হয়েছে।"

এর পর শুক্রবার, জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রী আনালেনা বেয়ারবক, আঞ্চলিক প্রতিদ্বন্দ্বিতার বিষয়ে ইসলামাবাদের অবস্থানের জন্য এক বিরল সমর্থনে বলেছিলেন যে, কাশ্মীর নিয়ে উত্তেজনার বিষয়ে বার্লিনের একটি "ভুমিকা এবং দায়িত্ব" রয়েছে।

সফররত পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির সাথে একটি যৌথ সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রেখে প্রধান জার্মান কূটনীতিক পারমাণবিক সশস্ত্র প্রতিদ্বন্দ্বী দেশগুলির মধ্যে ২০২১ সালের ফেব্রুয়ারির কাশ্মীর যুদ্ধবিরতি চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং উভয় পক্ষকে এটি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি জোর দিয়ে বলেন, বিরোধের শান্তিপূর্ণ সমাধানের জন্য জার্মানি "নিবিড়ভাবে জাতিসংঘের সম্পৃক্ততা" সমর্থন করে।

শনিবার, ভারত সরকার বেয়ারবকের কাশ্মীর-সম্পর্কিত মন্তব্যে দৃঢ়ভাবে আপত্তি জানায়। তারা ভারত পাকিস্তানের সাথে তাদের সমস্যা দ্বিপাক্ষিক হিসাবে বিবেচনা করে এবং তৃতীয় পক্ষের হস্তক্ষেপের তীব্র বিরোধিতা করে।

তবে, যুক্তরাষ্ট্রের কূটনীতিকের সফর এবং জার্মান পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বক্তব্যকে স্বাগত জানিয়েছে পাকিস্তান।

XS
SM
MD
LG