অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইথিওপিয়ার বাহিনী উত্তর টিগ্রায়তে তিনটি শহর দখল করেছে


ইথিওপিয়ার টিগ্রায় অঞ্চল।

ইথিওপিয়ার সরকারী বাহিনী এবং তাদের মিত্ররা আক্রমণ চালিয়ে শিয়ার শহর এবং টিগ্রায় অঞ্চলের আরও দুটি শহর দখল করেছে যার লক্ষ্য বিমানবন্দর এবং ফেডারেল অবকাঠামো নিয়ন্ত্রণ করা।

এই আক্রমণের পর অবিলম্বে যুদ্ধবিরতি এবং প্রতিবেশী ইরিত্রিয়া থেকে সৈন্য প্রত্যাহার করার জন্য আন্তর্জাতিক আহ্বান এসেছে। এই যুদ্ধ আফ্রিকান ইউনিয়নের নেতৃত্বাধীন শান্তি আলোচনার আশাকেও ধূলিস্যাৎ করেছে।

এক বিবৃতিতে, ইথিওপিয়ার সরকার বলেছে যে তাদের বাহিনী টিগ্রায় অঞ্চলের আলামাতা, কোরেম এবং শায়ার শহরের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে এবং সেই অঞ্চলগুলিতে সহায়তা পেতে সাহায্য গোষ্ঠীর সাথে সমন্বয় করবে।

বিদ্রোহী টিগ্রায় পিপলস লিবারেশন ফ্রন্ট সরকারী সৈন্যদের কাছে ভূমি হারানোর কথা স্বীকার করেছে তবে বলেছে যে তারা শত্রুদের বিরুদ্ধে নিজেদের রক্ষা করবে।

ইথিওপিয়ার আন্তর্জাতিক ক্রাইসিস গ্রুপের সিনিয়র বিশ্লেষক উইলিয়াম ডেভিসন বলেছেন, "শায়ার হল টিগ্রায়তে দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর এবং কৌশলগত কারণ এটি একটি মোড়ে রয়েছে, সম্ভাব্যভাবে এটিকে অ্যাক্সাম এবং অ্যাডওয়ার দিকে অগ্রসর হওয়া সহজ করে তোলে"। তিনি আরও বলেন,“ সেখান থেকে দক্ষিণে একটি প্রধান রাস্তাও রয়েছে। সুতরাং এটি একটি কৌশলগত এবং মনস্তাত্ত্বিক উত্সাহ (ইরিত্রিয়ান এবং ইথিওপিয়ান ফেডারেল বাহিনীর জন্য)। তবে অবশ্যই, এই অগ্রগতি কত দ্রুত অব্যাহত থাকবে তা আমরা এখনও দেখতে পাচ্ছি না। এটা সম্ভব যে মেকেলের দিকে দ্রুত অগ্রসর হতে পারে বা এটি প্রতিরোধ করার পথে বাধা থাকতে পারে।”

সোমবার, ইথিওপিয়ার সরকার বলে যে তারা বিমানবন্দর এবং যোগাযোগ সুবিধা সহ এই অঞ্চলের গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামোর নিয়ন্ত্রণ নিতে চাইছে।

টিগ্রায় এর যুদ্ধ চলছে দুই বছরের কাছাকাছি সময় ধরে, শান্তির কোন চিহ্ন দেখা যাচ্ছে না। আগস্টে, পাঁচ মাস যুদ্ধবিরতির পর আবার সংঘাত শুরু হয়।

XS
SM
MD
LG