অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কোভিড-১৯ টিকাদানে বাকি বিশ্বের তুলনায় পিছিয়ে রয়েছে আফ্রিকা


দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় এক শিশুকে টিকা দেওয়ার আগে একটি সিনোভ্যাক টিকা ধরে রয়েছেন এক স্বাস্থ্যকর্মী, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১।
দক্ষিণ আফ্রিকার প্রিটোরিয়ায় এক শিশুকে টিকা দেওয়ার আগে একটি সিনোভ্যাক টিকা ধরে রয়েছেন এক স্বাস্থ্যকর্মী, ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১।

আফ্রিকায় কোভিড-১৯ টিকার বিস্তার থমকে গিয়েছে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও) সতর্ক করেছে। এর ফলে মহাদেশটির ১২০ কোটি মানুষ এই ক্রমপরিবর্তনশীল ভাইরাসের বর্ধিত ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

ডব্লিউএইচও’র প্রকাশিত নতুন তথ্যে নতুন করে টিকাদানের ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য হ্রাস লক্ষ্য করা গিয়েছে। জুলাই থেকে সেপ্টেম্বরের মধ্যে টিকাদানের হার অর্ধেকেরও বেশি হ্রাস পেয়েছে।

ডব্লিউএইচও’র কর্মকর্তারা বলছেন, এই হারে এগোলে আফ্রিকার বেশিরভাগ দেশই এই বছরের শেষ নাগাদ নিজেদের জনসংখ্যার ৭০%-কে টিকাদানের বৈশ্বিক লক্ষ্যমাত্রাটি অর্জন করতে পারবে না।

তবে, এমন বাধা সত্ত্বেও, ডব্লিউএইচও বলছে যে, উচ্চঝুঁকিসম্পন্ন জনগোষ্ঠীর, বিশেষ করে বয়োঃবৃদ্ধদের টিকাদানের ক্ষেত্রে মোটামুটি অগ্রগতি হচ্ছে। সংস্থাটি জানিয়েছে অপর সুসংবাদগুলোর মধ্যে রয়েছে, গত ১২ সপ্তাহে, আফ্রিকায় মহামারী আরম্ভ হওয়ার পর থেকে সবচেয়ে কম সংক্রমণের হার দেখা গিয়েছে। তারা আরও জানায় যে, অঞ্চলটিজুড়ে মৃত্যুও নিম্নপর্যায়ে রয়েছে।

অপরদিকে, আফ্রিকার বেশ কিছু দেশ এমন পরিসংখ্যানের বিপরীতে টিকাদানে সফলতাও অর্জন করেছে। ডব্লিউএইচও জানায় যে, মরিশাস ও সিশেলস এর পাশাপাশি এখন লাইবেরিয়াও ৭০ শতাংশ মানুষকে টিকাদানে সক্ষম হয়েছে এবং রোয়ান্ডাও এই তালিকায় যুক্ত হওয়ার পথে রয়েছে।

অরেলিয়া নুয়েন গ্যাভি নামক টিকা জোটটির বিশেষ উপদেষ্টা হিসেবে কর্মরত। তিনি জানান যে, গ্যাভি এখন পর্যন্ত আফ্রিকায় ৬৭ কোটি ডোজ টিকা সরবরাহ করেছে। তিনি বলেন, মহামারী যতদিন পর্যন্ত হুমকি হয়ে থাকবে, ততদিনই আফ্রিকায় টিকা পাঠানো অব্যাহত থাকবে।

আফ্রিকায় ২,৫০,০০০ এরও বেশি মানুষ কোভিড-১৯ এ প্রাণ হারিয়েছেন। ডব্লিউএইচও’র কর্মকর্তারা বলছেন যে, অধিক সংখ্যক মানুষকে টিকাদান ভাইরাসটির বিস্তার হ্রাস করে, ভাইরাসটির নতুন প্রকরণ সৃষ্টি হওয়া প্রতিহত করে এবং জীবন বাঁচায়।


XS
SM
MD
LG