অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কপ-২৭: প্রতিশ্রুত ১০ হাজার কোটি ডলার বাস্তবায়নের আহ্বান জানাবে বাংলাদেশ


কপ-২৭: প্রতিশ্রুত ১০ হাজার কোটি ডলার বাস্তবায়নের আহ্বান জানাবে বাংলাদেশ

প্যারিস চুক্তি ও কনভেনশনের অধীনে নির্ধারিত সমষ্টিগত জলবায়ু লক্ষ্য অর্জনের জন্য পদক্ষেপ নিতে বিশ্ব নেতারা প্রস্তুতি নিচ্ছেন।আগামী মাসে অনুষ্ঠেয় কপ-২৭ সম্মেলন হবে এ বিষয়ে আলোচনা, বিতর্ক ও সিদ্ধান্তের মূলভুমি।

২৭ তম কনফারেন্স অফ দ্য পার্টিস বা কপ-২৭ আয়োজন করা হচ্ছে জলবায়ুর জরুরি পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলোতে পদক্ষেপ নেওয়ার লক্ষ্যে। আর সিদ্ধান্ত আসবে কপ-২৬ এর ফলাফলের ওপর ভিত্তি করে।

এই সম্মেলনে যে বিষয়গুলো আমলে নেয়া হবে, সেগুলো হলো; জরুরিভাবে গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করা, স্থিতিস্থাপকতা তৈরি করা, জলবায়ু পরিবর্তনের অনিবার্য প্রভাবগুলোর সঙ্গে খাপ খাইয়ে নেওয়া এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জলবায়ু সংক্রান্ত কাজে অর্থায়নের প্রতিশ্রুতি প্রদান করা।

সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বাংলাদেশ দ্রুততম সময়ের মধ্যে উন্নয়নশীল দেশগুলোকে প্রতি বছর ১০ হাজার কোটি ডলার তহবিল প্রদানের প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করবে।

মিশরের শহর শারম আল-শেখ-এ ৬ থেকে ১৮ নভেম্বর অনুষ্ঠেয় সম্মেলনে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন প্রশমন ও অভিযোজনের জন্য বর্ধিত তহবিলের গুরুত্বও তুলে ধরবে।

প্যারিস চুক্তির অধীনে দেশগুলো প্রতিশ্রুতিকে কর্মে পরিণত করার মাধ্যমে তারা যে বাস্তবায়নের নতুন যুগে রয়েছে, তা কপ-২৭ এ দেখানো হবে বলে আশা করা হচ্ছে।

রাষ্ট্র ও সরকার প্রধানরা ৭ ও ৮ নভেম্বর শারম আল-শেখ-এ জলবায়ু বাস্তবায়ন শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দেবেন এবং ১৫ থেকে ১৮ নভেম্বরের মধ্যে প্রাথমিকভাবে মন্ত্রীদের অংশগ্রহণে একটি উচ্চ-পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন আগামী জলবায়ু সম্মেলনের পূর্বে, ক্ষয়ক্ষতির নীতির সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ জলবায়ু অর্থায়নে করা অঙ্গীকার বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছেন।

পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম বলেছেন, “বাংলাদেশ দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করে যে জলবায়ু পরিবর্তন একটি নিরাপত্তা সমস্যা এবং এটি জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে (ইউএনএসসি) নিয়মিত বিরতিতে আলোচনা করা উচিত।”

XS
SM
MD
LG