অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

কালী পূজা উপলক্ষে লালমনিরহাট সীমান্তে দুই বাংলার মিলন মেলা


লালমনিরহাট সীমান্তে দুই বাংলার মিলন মেলা
লালমনিরহাট সীমান্তে দুই বাংলার মিলন মেলা

কালী পূজা উপলক্ষে, লালমনিরহাটের পাটগ্রামের মেচেরঘাট সীমান্তে মঙ্গলবার(২৫ অক্টোবর) সকালে দুই বাংলার মানুষের মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভারতের সীমান্ত রক্ষী বাহিনী-বিএসএফ ও বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) এই মিলনী অনুষ্ঠানের উদ্যোগ নেয়। দুই বছর পর এই মিলন মেলা অনুষ্ঠিত হলো। এই আয়োজনে, কাঁটাতারের বেড়ার দু-পাশে দাঁড়িয়ে আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে দেখা করেন দুই বাংলার মানুষ।

সকাল সাড়ে ৯ টায় দীপালী রানী দেখা করেন তার খালাতো বোনের ছেলে জয়ধর বাবুর সঙ্গে। ভাগ্নের সঙ্গে দেখা করে ফেরার পথে দীপালী রানী জানান, ১৯৪৭ সালে দেশ ভাগের সময় তার খালা-খালু ভারতে চলে যায়। সেই সময় ছোট খালা ও দুই বোনের সঙ্গে শেষ দেখা হয় তার। কয়েক বছর আগেও একবার খালাতো বোনের সঙ্গে দেখা হয়েছিল। গত বছর তার খালাতো বোন মারা গেছেন, দেখতে যেতে পারেননি তিনি।

শুধু দীপালী রানী নয়, তার মত শত শত মানুষ সীমান্তে ছুটে এসেছেন আপনজনের টানে। দীর্ঘদিন পর কাছের লোকজনদের দেখতে পেয়ে আবেগ-সিক্ত হন। একে অপরকে দেখে কান্নায় ভেঙে পড়েন।

সীমান্তে এসেছেন শফিকুল ইসলাম ও রবিন্দ্র নাথ। তারা জানান, “বছরে একটা দিন, কালী পূজা উপলক্ষে আমরা আপন জনের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ পাই। আমাদের আশা এই উদ্যোগ যেন অব্যাহত থাকে। আইনের জটিলতায় যেন এ মিলন মেলা বন্ধ না হয়।”

পাটগ্রাম উপজেলার বাউরা ইউনিয়ন চেয়ারম্যান রবিউল হক মিরন বলেন, ““এ সীমান্তে প্রতিবছর কালী পূজা উপলক্ষে দুই বাংলার মিলন মেলা বসে। এতে অনেকেই তাদের পুরাতন বন্ধু ও আত্মীয় স্বজনের সঙ্গে দেখা করতে পারেন। আনন্দিত হন, খুশি মনে বাড়ি ফিরেন তারা। এটা অব্যাহত থাকা প্রয়োজন।”

XS
SM
MD
LG