অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকায় বন্যা, ৩৪ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত: জাতিসংঘ


নাইজেরিয়ার মাকুর্ডিতে, বেউন নদীর তীরের বসবাসরত এক নারীকে বন্যার পানিতে একটি ঠেলাগাড়ি ঠেলে নিয়ে যেতে দেখা যাচ্ছে; ১ অক্টোবর, ২০২২

জাতিসংঘ শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর) শুক্রবার জানিয়েছে, বন্যার ধ্বংসযজ্ঞে পশ্চিম ও মধ্য আফ্রিকার ৩৪ লাখেরও বেশি মানুষ বাস্তুচ্যূত হয়েছে।

ইউএনএইচসিআর শুক্রবার জানায়, নাইজেরিয়ার এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যায় শত শত মানুষ নিহত হয়েছে, বাস্তুচ্যুত হয়েছে ১৩ লাখ মানুষ । ২কোটি ১৮ লাখ জনসংখ্যার পশ্চিম আফ্রিকার দেশটিতে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ২৮ লাখ মানুষ।

পানিতে কৃষিজমি এবং অবকাঠামো ডুবে যাওয়ায়,বন্যা থেকে বেঁচে যাওয়া লোকজনকে উঁচুস্থানে আশ্রয় নিতে হয়। অনেকে আশ্রয় শিবিরে বসবাস করছে। এই আশ্রয় শিবিরগুলো তৈরি করা হয়েছিল ঐ অঞ্চলে চলমান সহিংসতায় অভ্যন্তরীন বাস্তুচ্যুতদের জন্য। সংঘাত এ অঞ্চলের অন্যতম সমস্যা।

ইউএনএইচসিআরের মুখপাত্র ওলগা সাররাদো বলেন, "এখন জলবায়ু সংকট ঘটছে– জীবিকা ধ্বংস করা হচ্ছে, খাদ্য নিরাপত্তা বিঘ্নিত হচ্ছে, স্বল্প-সম্পদ নিয়ে সংঘাত বাড়ছে। আর এর ফলে বাস্তুচ্যুতি বাড়ছে। তিনি আরও বলেন, “জলবায়ু অভিঘাত এবং স্থানচ্যুতির মধ্যে সম্পর্কটা এখন পরিষ্কার এবং এটা ক্রমবর্ধমা”।

সংস্থাটি উল্লেখ করেছে যে চাদের সরকার জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছে।সেখানে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ১০ লাখের বেশি মানুষ। ইউএনইচসিআর জানিয়েছে, নিজার, মালি ও বুরকিনা ফাসোতে বন্যায় শত শত মানুষ নিহত হয়েছে, বাস্তুচ্যুত হয়েছে হাজার হাজার মানুষ।

পশ্চিম আফ্রিকায় যখন ব্যাপক বৃষ্টিপাত হচ্ছে, তখন ৪০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ খরা চলছে আফ্রিকার শৃঙ্গ (হর্ন)নামে পরিচিত অঞ্চলে।

অপর্যাপ্ত অবকাঠামো এবং পরিবেশগত নির্দেশিকা না মানার কারণে নাইজেরিয়াতে প্রতি বছর ব্যাপক বন্যা হয় । এবছর সেপ্টেম্বরেও স্থানীয় কিছু নদীর পানি উপচে প্লাবন হয়েছে এবং বন্যা হয়েছে। দেশটির কর্তৃপক্ষ এর জন্য অস্বাভাবিক বৃষ্টিপাত এবং পার্শ্ববর্তী ক্যামেরুনের উত্তরাঞ্চলের লাগদো

জলাধার থেকে অতিরিক্ত পানি ছেড়ে দেওয়াকে দায়ী করে।

XS
SM
MD
LG