অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইরান থেকে জাহাজে ইয়েমেন নেয়ার সময় ৭০ টন ক্ষেপণাস্ত্র জ্বালানি জব্দঃ যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী


যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনীর থেকে প্রকাশিত এই ছবিতে নাবিকরা ওমান উপসাগরে একটি জাহাজে ইউরিয়া এবং অ্যামোনিয়াম পারক্লোরেট-এর ব্যাগ পরীক্ষা করছে। ৯ নভেম্বর, ২০২২।

মঙ্গলবার যুক্তরাষ্ট্রের নৌবাহিনী বলেছে, তারা ইরান থেকে ইয়েমেনগামী একটি জাহাজে সারের ব্যাগের মধ্যে লুকানো ৭০ টন ক্ষেপণাস্ত্র জ্বালানি উপাদান খুঁজে পেয়েছে। বছরের পর বছর ধরে চলা যুদ্ধের ওপর আরোপিত যুদ্ধবিরতি ভেঙ্গে পড়ার পর এটি এই ধরনের প্রথম জব্দের ঘটনা।

নৌবাহিনী বলেছে, যে পরিমাণ অ্যামোনিয়াম পার ক্লোরেট আবিষ্কৃত হয়েছে তা ১২টিরও বেশি মাঝারি পাল্লার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত হতে পারে।এ ধরনের অস্ত্র ইয়েমেনের ইরান-সমর্থিত হুথি বিদ্রোহীরা দেশটির আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকার এবং সৌদি নেতৃত্বাধীন জোট উভয়কে সমর্থন করা বাহিনীকে লক্ষ্যবস্তু করতে ব্যবহার করেছে।

তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্যের জন্য হুথিদের সাথে যোগাযোগ করা যায়নি। জাতিসংঘের ইরান মিশন তাৎক্ষণিকভাবে মন্তব্যের জন্য সাড়া দেয়নি।

২০১৪ সালে হুথিরা ইয়েমেনের রাজধানী সানা দখল করে এবং আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারকে নির্বাসনে যেতে বাধ্য করে।

জাতিসংঘের একটি অস্ত্র নিষেধাজ্ঞার অধীনে ২০১৪ সাল থেকে হুথিদের কাছে অস্ত্র হস্তান্তর নিষিদ্ধ করা হয়েছে। তা সত্ত্বেও ইরান দীর্ঘদিন ধরে জাহাজ চালানের মাধ্যমে হুথিদের কাছে রাইফেল, রকেট চালিত গ্রেনেড, ক্ষেপণাস্ত্র এবং অন্যান্য অস্ত্র হস্তান্তর করে আসছে। যদিও ইরান হুথিদেরকে অস্ত্র দেয়ার কথা অস্বীকার করেছে, নিরপেক্ষ বিশেষজ্ঞ, পশ্চিমা দেশগুলো এবং জাতিসংঘের বিশেষজ্ঞরা বিদেশে আটককৃত জাহাজগুলোতে ইরানে তৈরিকৃত উপাদান খুঁজে পেয়েছেন।

ইয়েমেন যুদ্ধে ছয় মাসের যে দীর্ঘতম যুদ্ধবিরতি ছিল, পুনর্নবীকরণের কূটনৈতিক প্রচেষ্টা সত্ত্বেও অক্টোবরে এর মেয়াদ শেষ হয়েছে। এর ফলে যুদ্ধ আবার বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। যুদ্ধে ইয়েমেনে দেড় লাখেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। নিহতদের মধ্যে সাড়ে ১৪ হাজারেরও বেশি বেসামরিক মানুষ।

XS
SM
MD
LG