অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে গ্র্যামি মনোনয়নে মা-মেয়ের জুটি


গায়ক-গীতিকার আরমিন মুসা এবং তার মা বিশিষ্ট নজরুলসংগীত শিল্পী ড. নাশিদ কামাল

বাংলাদেশি গায়ক-গীতিকার আরমিন মুসা এবং তার মা বিশিষ্ট নজরুলসংগীত শিল্পী ড. নাশিদ কামাল ‘বেস্ট গ্লোবাল মিউজিক অ্যালবাম’ ক্যাটাগরিতে ৬৫তম বার্ষিক গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ডের জন্য মনোনীত হয়েছেন।

বার্কলি ইন্ডিয়ান অ্যাসেম্বলের ‘শুরুআত’ অ্যালবামের ‘জাগো পিয়া’ গানটির জন্য বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত সংগীত পুরস্কারে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে মা-মেয়ের এই জুটি মনোনীত হয়।

মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) রাতে ইউএনবিকে এ খবর নিশ্চিত করে আরমিন মুসা বলেন, ‘আমি এই অর্জনে অভিভূত, যা এখনো বিশ্বাস হচ্ছে না’।

গ্র্যামির অফিসিয়াল ওয়েবসাইটে মনোনয়নের বিষয়টি বুধবার (১৬ নভেম্বর) নিশ্চিত করা হয়।

গানটি লিখেছেন ও কণ্ঠ দিয়েছেন আরমিন মুসা। অন্যদিকে এর বাংলা রূপান্তর করেছেন নাশিদ কামাল।

বার্কলি ইন্ডিয়ান অ্যাসেম্বলের (বিআইই) প্রথম অ্যালবাম শুরুআতে আরমিন মুসার সঙ্গে ওস্তাদ জাকির হোসেন, শঙ্কর মহাদেবন, শ্রেয়া ঘোষালসহ কিংবদন্তি এশীয় সংগীতজ্ঞদের দেখা গেছে।

বর্তমান বাংলাদেশের অন্যতম জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী ও বার্কলি ইন্ডিয়ান অ্যাসেম্বলের প্রথম বাংলাদেশি শিক্ষার্থী এবং ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীতে বিশ্বভারতীর প্রশিক্ষণার্থী আরমিন মুসা ‘ভ্রমর কোইয়ো গিয়া’, ‘লোনা দেয়াল’সহ কয়েকটি গানের জন্য সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করেন। তিনি গানের দল ‘ঘাসফড়িং কয়্যার’-এর প্রতিষ্ঠাতা।

বাংলা লোকগীতির বিখ্যাত শিল্পী আব্বাসউদ্দীন আহমদের বড় নাতনি নাশিদ কামাল দক্ষতার সঙ্গে চার দশকেরও বেশি সময় ধরে সংগীত দুনিয়ায় বিচরণ করছেন। তিনি বাংলা লোকগান ও নজরুল সংগীতের সমাদৃত একজন গবেষক ও পরিবেশক।

একজন ক্লাসিকাল ও সেমি-ক্লাসিকাল বাংলা সংগীতশিল্পী নাশিদ কামাল উর্দু, জাপানি, চীনা, রুমানিয়ান ও তুর্কিসহ আরও অনেক বিদেশি ভাষায় গান পরিবেশন করেছেন। এ ছাড়াও তিনি একজন শিক্ষাবিদ, জনসংখ্যাবিষয়ক গবেষক ও লেখক।

গ্র্যামি অ্যাওয়ার্ড ২০২৩ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের লস অ্যাঞ্জেলেসে অনুষ্ঠিত হবে।

XS
SM
MD
LG