অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চীনে কোভিডের সংক্রমণ বৃদ্ধি—বেইজিংয়ের বৃহত্তম জেলার বাসিন্দাদের বাড়িতে থাকার অনুরোধ


চীনের বেইজিংয়ে কোভিড-১৯–এর প্রাদুর্ভাব অব্যাহত থাকায় প্রতিরক্ষামূলক পোশাক পরিহিত মহামারী প্রতিরোধ কর্মীরা একটি লকডাউন ঘোষিত আবাসিক কম্পাউন্ডের বাইরে হাঁটছেন। ১৮ নভেম্বর, ২০২২।

চীনের রাজধানী বেইজিংয়ের সর্বাধিক জনবহুল জেলার কর্তৃপক্ষ সোমবার (২১ নভেম্বর) তাদের বাসিন্দাদের বাড়িতে থাকার আহ্বান জানিয়েছে। সাপ্তাহিক ছুটির শেষে এ অনুরোধ জানানো হয়। শহরে কোভিড-১৯ সংক্রমণের হার অনেক বেড়েছে, অনেক ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়ে গেছে এবং এলাকার স্কুলগুলো অনলাইনে ক্লাস স্থানান্তরিত করেছে।

রবিবার রাজধানীতে কোভিডে আক্রান্ত হয়ে ২ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

মৃত্যুর পাশাপাশি শহরটিতে স্থানীয়ভাবে ১৫৪টি নতুন উপসর্গযুক্ত কোভিড-১৯ সংক্রমণ এবং ৮০৮টি উপসর্গবিহীন সংক্রমণ চিহ্নিত করা হয়েছে। সোমবার স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষ এ সংবাদ জানায়।

এর আগের দিন ৬৯টি উপসর্গযুক্ত সংক্রমণ এবং ৫৫২টি উপসর্গবিহীন সংক্রমণে চিহ্নিত করা হয়। কোয়ারান্টাইন এলাকার বাইরে কর্তৃপক্ষ পৃথক পৃথকভাবে ২৬৬টি সংক্রমণ চিহ্নিত করেছে।

রবিবার বেইজিং শহরের কর্মকর্তারা বিস্তীর্ণ চাওয়াং জেলার ৩৫ লাখ বাসিন্দাদের পাশাপাশি দূতাবাস এবং অফিস টাওয়ারে অবস্থানকারীদেরকে সোমবার বাড়িতে থাকার অনুরোধ করেছিলেন।

এই মাসে উন্মোচিত একাধিক পদক্ষেপের অধীনে চীনের কর্তৃপক্ষ আরও নির্দিষ্ট করে কোভিড-১৯ নিষেধাজ্ঞাগুলো আরোপ করতে চেয়েছে। চীন তার প্রথম শীতকালীন অত্যন্ত সংক্রমণযোগ্য অমিক্রন ভ্যারিয়েন্টের সঙ্গে লড়াই করার সময়ও বিনিয়োগকারীদের জন্য নিষেধাজ্ঞা আরও উল্লেখযোগ্যভাবে সহজ করার আশা প্রকাশ করেছে।

অনেক বিশ্লেষক মনে করেন, এই ধরনের পরিবর্তন শুধুমাত্র মার্চ বা এপ্রিলে শুরু হবে। তবে সরকার যুক্তি দিয়েছে যে, প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের জিরো কোভিড নীতি জীবনরক্ষাকারী।

বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করেছেন, সম্পূর্ণভাবে সবকিছু আবারও চালু করার জন্য ব্যাপক একটি বুস্টার ভ্যাক্সিন প্রচেষ্টা দরকার এবং এমন একটি দেশে এই ব্যাপক পরিবর্তন প্রয়োজন যেখানে এই রোগটি সম্পূর্ণভাবে প্রতিহত করা যায়।

XS
SM
MD
LG