অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলায় দণ্ডিত আবদুস সামাদকে জামিন দেয়নি হাইকোর্ট


বাংলাদেশ হাইকোর্ট

বাংলাদেশের তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে, সাতক্ষীরায় হামলা চালানোর মামলায় দণ্ডিত অ্যাডভোকেট আবদুস সামাদকে জামিন দেননি হাইকোর্ট। তার জামিনের আবেদন কার্যতালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে।

সোমবার (২৮ নভেম্বর) বিচারপতি মো. বদরুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসেন দোলনের বেঞ্চ এই আদেশ দেন। বেঞ্চের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী এ কথা নিশ্চিত করেছেন। আদালতে আবদুস সামাদের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল।

সুজিত চ্যাটার্জি বাপ্পী বলেন, “আবদুস সামাদকে সাড়ে ৪ বছরের সাজা দেন বিচারিক আদালত। এর মধ্যে দুই বছর সাজা ভোগ শেষ হয়েছে। অসুস্থতা এবং একজন আইনজীবী এই যুক্তি তুলে ধরে জামিনের আবেদন করেন। আপিল বিভাগে জামিন না দেওয়ার সিদ্ধান্ত থাকায় আদালত আবেদনটি কার্যতালিকা থেকে বাদ দিয়েছেন।”

২০০২ সালের ৩০ আগস্ট, ধর্ষণের শিকার হয়ে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এক মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রীকে দেখতে সেখানে যান তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা। সড়কপথে ঢাকায় ফেরার সময়, কলারোয়া উপজেলা বিএনপি অফিসের সামনে শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা হয়। গুলি ছোড়া হয় শেখ হাসিনাকে লক্ষ্য করে। এ সময় বোমা বিস্ফোরণ ও গাড়ি ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটে। এতে আহত হন শেখ হাসিনার সফরসঙ্গী কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের কয়েকজন নেতাসহ স্থানীয় নেতাকর্মী ও সাংবাদিক।

ঐ ঘটনায় করা মামলার তদন্ত শেষে, ২০১৫ সালের ১৭ মে বিএনপির তৎকালীন সংসদ সদস্য হাবিবুল ইসলামসহ ২৭ জনের বিরুদ্ধে শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা, বিস্ফোরক দ্রব্য ও অস্ত্র আইনে পৃথক অভিযোগপত্র দেয় পুলিশ।

এর মধ্যে হত্যাচেষ্টা মামলায় গত বছরের ৪ ফেব্রুয়ারি সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালত রায় দেন। রায়ে বিএনপির সাবেক সাংসদ হাবিবুল ইসলামসহ তিনজনকে দণ্ডবিধির বিভিন্ন ধারায় মোট ১০ বছর করে এবং অপর ৪৭ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেওয়া হয়।

এই রায়ের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরা দায়রা আদালতে পৃথক আপিল করে জামিন চান দণ্ডিত ব্যক্তিরা। এই আদালতে তাদের জামিন আবেদন অগ্রাহ্য হলে, এর বিরুদ্ধে গত ববছরের এপ্রিলে হাইকোর্টে জামিন চেয়ে পৃথক আবেদন করেন আবদুস সামাদসহ সাতজন। ঐ আবেদনের শুনানি নিয়ে গত বছরের ২৫ মে হাইকোর্ট তাদের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দেন। পরে আপিল বিভাগ একই বছরের ২৭ মে তাদের জামিন স্থগিত করেন।

এই সাতজন হলেন; আবদুস সাত্তার, গোলাম রসুল, আবদুস সামাদ, জহিরুল ইসলাম, রাকিব, শাহাবুদ্দিন ও মনিরুল ইসলাম।

XS
SM
MD
LG