অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

চীনের জিনানের বাসিন্দাদের লকডাউন ভাঙার চেষ্টা


চীনের জিনানের বাসিন্দাদের লকডাউন ভাঙার চেষ্টা
please wait

No media source currently available

0:00 0:00:59 0:00

২৯ নভেম্বর মঙ্গলবার প্রকাশিত একটি ভিডিওতে চীনের জিনানের বাসিন্দাদের লকডাউন ভাঙার চেষ্টা করতে এবং ভাইরাস প্রতিরোধক স্যুট পরিহিত পুলিশের সাথে হাতাহাতি করতে দেখা গেছে।

ওদিকে করোনাভাইরাস সংক্রান্ত বিধিনিষেধের বিরুদ্ধাচরণ ও প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং এর পদত্যাগের দাবিতে বিক্ষোভ প্রতিরোধের জন্য চীনের পুলিশ দেশটির রাজধানী বেইজিং ও অর্থনৈতিক প্রাণকেন্দ্র সাংহাই শহরে মঙ্গলবার টহল দিয়েছে।

পুলিশী তৎপরতার কারণে উভয় শহরই রাতভর নিশ্চুপ ছিল, বিশেষত সেসব জায়গাগুলো, যেখানে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারকারীরা নতুন করে জমায়েতের আহ্বান জানিয়েছিলেন।

চীন সরকার সোমবার মহামারি সংক্রান্ত কিছু বিধিনিষেধ শিথিল করেছে, তবে একইসঙ্গে তারা শূন্য-কোভিড কৌশল অব্যাহত রাখার ইচ্ছেও পুনর্ব্যক্ত করেছে।

শি জিনপিংয়ের শূন্য-কোভিড নীতির আওতায় কঠোর লকডাউনের মাধ্যমে করোনাভাইরাসের সংক্রমণকে সীমিত রাখা সম্ভব হয়েছে, তবে এতে প্রায় ১৪০ কোটি মানুষের দেশটির দৈনন্দিন জীবনযাত্রা বড় আকারে বিঘ্নিত হয়েছে। দেশের বিভিন্ন অংশে বিক্ষোভ শুরু হওয়া এটাই নির্দেশ করছে, যে চীনের অসংখ্য নাগরিক দীর্ঘস্থায়ী কোয়ারেন্টাইন ও বহুল-বিস্তৃত পরীক্ষার ওপর বিরক্ত হয়ে পড়েছে।

গত সপ্তাহান্তে চীনের পশ্চিম অঞ্চলের একটি শহরে বিক্ষোভকারীরা “লকডাউন প্রত্যাহার কর” শ্লোগান দিয়ে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। সাংহাইতে বিক্ষোভকারীরা সাদা কাগজ তুলে ধরে তাদের অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

সাংহাইতে অন্যান্যরা “শি জিনপিং! ক্ষমতা ছাড়ো! সিসিপি! ক্ষমতা ছাড়ো” বলে শ্লোগান দেয়। সিসিপি বলতে দেশটির ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট পার্টিকে বোঝান তারা। পুলিশ কয়েক ডজন বিক্ষোভকারীকে আটক করে। তাদেরকে পুলিশ ভ্যান ও বাসে করে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। তবে কতজনকে আটক করা হয়েছে, সে সংখ্যাটি নিশ্চিত নয়।

ওয়াশিংটনে হোয়াইট হাউজ জানিয়েছে, বাইডেন প্রশাসন শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদকে সমর্থন করে।

জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখপাত্র জন কার্বি বলেন, “ইরান বা চীন বা পৃথিবীর যেকোনো প্রান্তে, যেখানেই মানুষ বিক্ষোভ করুক না কেনো, গণতন্ত্রের দৃঢ় ক্ষমতা ও গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বের বিষয়ে প্রেসিডেন্টের দৃষ্টিভঙ্গিতে কোনো পরিবর্তন আসেনি।”

তিনি আরও জানান, বাইডেন প্রশাসন চীনের পরিস্থিতির ওপর গভীর নজর রাখছে।

ওয়াশিংটনে যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিল জানায়, সংস্থাটি চীনের নাগরিকদের কোভিড-১৯ সংক্রান্ত বিধিনিষেধের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণভাবে প্রতিবাদ জানানোর অধিকারের বিষয়টিকে সমর্থন করে।

XS
SM
MD
LG