অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জি-সেভেন নির্ধারিত জ্বালানী তেলের মূল্যসীমা রাশিয়াকে থামাতে যথেষ্ট নয়: জেলেন্সকি


রাশিয়ার নোভোরোসিস্ক-এ নোঙর করা একটি তেলবাহী জাহাজ, ১১ অক্টোবর ২০২২। (ফাইল ফটো)
রাশিয়ার নোভোরোসিস্ক-এ নোঙর করা একটি তেলবাহী জাহাজ, ১১ অক্টোবর ২০২২। (ফাইল ফটো)

ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেন্সকি বলেন যে রুশ সামুদ্রিক জ্বালানী তেলের সর্বোচ্চ বিক্রয় মূল্য ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার নির্ধারণ করে দেওয়া, ইউক্রেনে তাদের আক্রমণের অর্থায়ন বন্ধে রাশিয়ার অর্থনীতির শ্বাসরোধ করতে যথেষ্ট নয়।

জ্বালানীর এমন সর্বোচ্চ মূল্য নির্ধারণে অস্ট্রেলিয়া, ব্রিটেন, কানাডা, জাপান, যুক্তরাষ্ট্র ও ইউরোপীয় ইউনিয়ন সম্মত হয়েছে। তবে শনিবার ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট মূল্যটি আরও অনেক কমানোর দাবি জানান।

তিনি বলেন, “যুক্তিটি পরিষ্কার। যদি রাশিয়ার তেলের মূল্যসীমা ৬০ ডলার নির্ধারণ করা হয়, এবং উদাহরণস্বরূপ ৩০ ডলার নির্ধারণ করা না হয়, যা সম্পর্কে পোল্যান্ড ও বল্টিক দেশগুলো বলেছিল, তাহলে রাশিয়ার বাজেটে প্রতিবছর ১০,০০০ কোটি ডলার যোগ হবে।”

তিনি বলেন, “এই অর্থ শুধুমাত্র যুদ্ধের জন্য ব্যয় হবে না এবং শুধুমাত্র অন্যান্য সন্ত্রাসী শাসকগোষ্ঠী ও প্রতিষ্ঠানগুলোতে রাশিয়ার আরও অর্থায়নে ব্যবহৃত হবে না। এই অর্থ ঠিক সেই দেশগুলোকে অস্থিতিশীল করতেও ব্যবহৃত হবে, যেই দেশগুলো বর্তমানে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত এড়ানোর চেষ্টা করছে।”

পশ্চিমা দেশগুলো বিশ্বাস করে যে, মূল্যের এমন উল্লেখযোগ্য হ্রাস, বিক্রয় মূল্যকে রাশিয়ার জ্বালানী উৎপাদন ব্যয়ের থেকে নিচে নামিয়ে আনবে।

কৌশলগত যোগাযোগ বিষয়ক যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা পরিষদ সমন্বয়ক জন কার্বি শুক্রবার বলেন যে, “আমাদের ধারণা যে ব্যারেল প্রতি ৬০ ডলার মূল্যটি” রাশিয়ার মুনাফা করা এবং চাহিদা ও যোগানের সমন্বয়ের ভারসাম্য বজায় রাখার জন্য যথোপযুক্ত। তিনি আরও জানান যে নির্ধারিত এই সর্বোচ্চ মূল্যটি ভবিষ্যতে পরিবর্তন করা যেতে পারে।

যুক্তরাষ্ট্রের অর্থমন্ত্রী জ্যানেট ইয়েলেনের প্রস্তাবিত এই মূল্যসীমার উদ্দেশ্য হল, জ্বালানী তেল থেকে রাশিয়ার আয় হ্রাস করা, যেই আয় রাশিয়ার সামরিক বাহিনীকে এবং ইউক্রেনে আক্রমণে সহায়তা করে।

সর্বোচ্চ মূল্যসীমাটি সোমবার থেকে কার্যকর হবে। ঐ একই দিন রাশিয়ার বেশিরভাগ জ্বালানী তেল রফতানির ক্ষেত্রে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞাও কার্যকর হবে।

XS
SM
MD
LG