অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রাশিয়া, চীন পারমাণবিক অস্ত্রসম্ভার ‘বৃদ্ধি করছে’: যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী


ওয়াশিংটনের পেন্টাগনে এক ব্রিফিং এর সময় বক্তব্য রাখছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন, ২৭ অক্টোবর ২০২২। (ফাইল ফটো)

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন শুক্রবার সতর্ক করেছেন যে, রাশিয়া এবং চীন তাদের পারমাণবিক অস্ত্র-সম্ভার “আধুনীকিকরণ করছে ও সম্প্রসারিত করছে”। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে রাশিয়ার সঙ্গে এবং তাইওয়ান বিষয়ে চীনের সঙ্গে ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে প্রতিরক্ষামন্ত্রী লয়েড অস্টিন এ কথা বলেন।

আমেরিকার পারমাণবিক অস্ত্র সম্ভারের দায়িত্বে থাকা সামরিক বাহিনীর শাখা, ইউএস স্ট্র্যাটেজিক কমান্ড-এর সদর দফতরে দেওয়া বক্তব্যে অস্টিন বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্র “এক নতুন পর্বের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছে;” যখন, দুইটি প্রধান পারমাণবিক শক্তিধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রের “কৌশলগত প্রতিদ্বন্দ্বী”।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সমালোচনা করেন।অস্টিন এর ভাষ্যমতে, পুতিন ফেব্রুয়ারিতে ইউক্রেন আক্রমণের পর থেকে, অত্যন্ত দায়িত্বহীনভাবে পারমাণবিক অস্ত্রের শক্তি প্রদর্শন রছেন।

অস্টিন বলেন, “পারমাণবিক শক্তিধর দেশগুলোর সব ধরণের উস্কানিমূলক আচরণ এড়িয়ে চলার দায়িত্ব রয়েছে।” তিনি বলেন, “পারমাণবিক অস্ত্র বিস্তারের ঝুঁকি হ্রাসে, উত্তেজনা প্রশমন এবং পারমাণবিক যুদ্ধ এড়ানোর বিষয়েও এই দেশগুলোর গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে।”

পুতিন বৃহস্পতিবার বলেন, “পারমাণবিক যুদ্ধের হুমকি বৃদ্ধি পাচ্ছে।”

পুতিন আভাস দেন যে, যদি রাশিয়া প্রথমে পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহারের বিষয়টি নাকচ করে দেয় তাহলে তারা পারমাণবিক আক্রমণের ঝুঁকিতে পড়বে।

এদিকে, গতমাসে পেন্টাগনের একটি প্রতিবেদনে সতর্ক করা হয়েছে যে, চীনের কাছে এখন ৪০০টিরও বেশি পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে, যা মাত্র দুই বছর আগের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ।

কংগ্রেসকে দেওয়া পেন্টাগনের বার্ষিক “চীনের সামরিক শক্তি” বিষয়ক প্রতিবেদনে বলা হয়, চীন যে হারে পারমাণবিক শক্তি বৃদ্ধি করছে, সে অনুযায়ী দেশটি ২০৩৫ সাল নাগাদ ১,৫০০টি পারমাণবিক অস্ত্র মজুদে সক্ষম হতে পারে।



XS
SM
MD
LG