অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিক্ষোভ সংশ্লিষ্ট দ্বিতীয় মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে ইরান


ইরানের একজন বিক্ষোভকারী মাজিদরেজা রাহনাভার্দ, যাকে ফাঁসি দেয়ার খবর পাওয়া গেছে।

ইরান সোমবার জানিয়েছে যে, সেপ্টেম্বরে আরম্ভ হওয়া দেশব্যাপী বিক্ষোভগুলোর সাথে সংশ্লিষ্ট দ্বিতীয় কারাবন্দির মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছে দেশটি।

ইরানের বিচার বিভাগ পরিচালিত মিজান সংবাদ সংস্থাটি জানায় যে, মাজিদরেজা রাহনাভার্দ-কে সোমবার মাশহাদ শহরে জনসমক্ষে ফাঁসি দেওয়া হয়েছে।

রাহনাভার্দ এর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল যে তিনি গত মাসে মাশহাদ-এ নিরাপত্তা বাহিনীর দুইজন সদস্যকে ছুরিকাঘাতে হত্যা করেন।

সক্রিয়কর্মীরা বলছেন যে, রুদ্ধদ্বার শুনানীর মাধ্যমে ইরান অন্তত ডজনখানেক ব্যক্তিকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে।

বিক্ষোভের সাথে সংশ্লিষ্ট প্রথম কোন ব্যক্তির মৃত্যুদণ্ডটি গত সপ্তাহে কার্যকর করা হয়।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) পররাষ্ট্র নীতি বিষয়ক প্রধান ইয়োসেপ বোরেল সোমবার বলেন তিনি আশা করছেন যে, বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে দমনপীড়ন এবং ইউক্রেন আক্রমণে রাশিয়ার ব্যবহৃত ড্রোনগুলো সরবরাহ করার কারণে, ইইউ পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা ইরানের বিরুদ্ধে “একটি অত্যন্ত কঠোর নিষেধাজ্ঞার প্যাকেজ” অনুমোদন করবেন।

ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকের্ আগে জার্মানীর পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যানালেনা বেয়ারবক সংবাদদাতাদের বলেন যে ইরানের মৃত্যুদণ্ডগুলো কার্যকর করা “ভীতি প্রদর্শনের এক নির্লজ্জ প্রচেষ্টা”।

বেয়ারবক বলেন, “আমরা এটি পরিষ্কার করছি যে আমরা ইরানের নিরীহ মানুষজনের পাশে রয়েছি। এমন একটি ব্যবস্থা যা নিজেদের মানুষজনের প্রতি এমন আচরণ করে, তারা এই আশা করতে পারে না যে ইউরোপীয় ইউনিয়নের সাথে তাদের সামান্যতম স্বাভাবিক সম্পর্ক বজায় থাকবে।”

পুলিশী হেফাজতে ২২ বছর বয়সী মাহসা আমিনির মৃত্যুর জেরে বিক্ষোভগুলো আরম্ভ হয়। মাথার হিজাব ঠিকমত না পরে দেশটির পোশাকনীতি ভঙ্গ করার দায়ে আমিনি ইরানের নৈতিকতা পুলিশের হাতে আটক হয়েছিলেন।

XS
SM
MD
LG