অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রামাফোসার অভিশংসনের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার পার্লামেন্ট


দক্ষিণ আফ্রিকার জোহানেসবার্গে আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস (এএনসি) জাতীয় নির্বাহী কমিটির বৈঠক শেষে বেরিয়ে এসে জনতার উদ্দেশ্যে হাত নাড়াচ্ছেন দেশটির প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসা। ৫ ডিসেম্বর, ২০২২।

দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট সিরিল রামাফোসার বিরুদ্ধে অভিশংসন কার্যক্রম শুরু করার বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে দেশটির পার্লামেন্ট। ২০২০ সালে রামাফোসা তাঁর খামারে অঘোষিত বৈদেশিক মুদ্রা রেখেছিলেন, এমন একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হবার পর এই অভিশংসন কার্যক্রম শুরু হয়।

রামাফোসার অভিশংসন পদক্ষেপের বিপক্ষে ২১৪-১৪৮ ভোট দিয়েছেন আইনপ্রণেতারা। সংসদে সংখ্যাগরিষ্ঠ ক্ষমতাসীন আফ্রিকান ন্যাশনাল কংগ্রেস পার্টি, রামাফোসার পক্ষে অবস্থান নেয়ায়, অভিশংসনের জন্য এগিয়ে যাওয়ার জন্য প্রয়োজনীয় দুই-তৃতীয়াংশ ভোট পেতে ব্যর্থ হয় সংসদ।

পার্লামেন্টের চারজন এএনসি সদস্য অবশ্য অভিশংসনের পক্ষে ভোট দিয়ে রামাফোসার প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করেন। এছাড়া আরও কয়েকজন এএনসি সদস্য ভোটের জন্য পার্লামেন্টে উপস্থিত ছিলেন না।

অন্তত চারজন এএনসি আইনপ্রণেতা দলীয় সিদ্ধান্তের তোয়াক্কা না করে বিরোধী দলগুলোর সাথে অভিশংসন প্রক্রিয়ার পক্ষে ভোট দিয়েছেন, যার মধ্যে একজন নকোসাজানা দ্লামিনি-জুমা, যিনি বর্তমানে রামাফোসার মন্ত্রিসভার একজন মন্ত্রী এবং উচ্চ পদস্থ এএনসি নেতা।

২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত শেষ জাতীয় সম্মেলনে এএনসি প্রেসিডেন্সির জন্য রামাফোসার কাছে দ্লামিনি-জুমা হেরে গিয়েছিলেন।

অন্যান্য উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিদের মধ্যে যারা রামাফোসার অভিশংসনের পক্ষে ভোট দিয়েছেন, তারা হলেন: রামাফোসার চিরায়ত প্রতিদ্বন্দ্বী এবং সাবেক প্রেসিডেন্ট জ্যাকব জুমার মিত্র, সুপ্রা মাহুমাপেলো এবং মোসেবেঞ্জি জওয়ানে। অভিশংসনের পক্ষে তাদের দেয়া ভোট এএনসি-র মধ্যে বিভক্তির বিষয়টিই নির্দেশ করে।

মঙ্গলবার বৈঠকে এএনসি আইনপ্রণেতারা যুক্তি দিয়েছিলেন, যে প্যানেলটি প্রতিবেদনটির খসড়া তৈরি করেছিল, তারা রামাফোসার অভিশংসনের পক্ষে যথেষ্ট প্রমাণ উপস্থাপন করেনি। তারা বলেন, অন্যান্য আইন প্রয়োগকারী সংস্থা এখনও বিষয়টি তদন্ত করছে।

তারা প্রতিবেদনের বিচার বিভাগীয় পর্যালোচনার জন্য রামাফোসার আবেদনের বিষয়টি উল্লেখ করে বলেছেন, প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে কোনো পদক্ষেপ নেওয়ার আগে সংসদের সেই প্রক্রিয়ার ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করা উচিত ছিল।

আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সংসদীয় ভোট অনুষ্ঠিত হবে, যেখানে রামাফোসা তার রাজনৈতিক ভবিষ্যতের জন্য লড়াই করবেন। কারণ, তিনি শুক্রবার জোহানেসবার্গে শুরু হওয়া জাতীয় সম্মেলনে এএনসি-র নেতা হিসেবে পুনর্নির্বাচিত হতে চান।

সম্মেলনটি দলের সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সংস্থা, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্যও নির্বাচন করবে।

২০২৪ সালে দক্ষিণ আফ্রিকার প্রেসিডেন্ট হিসাবে দ্বিতীয় মেয়াদের নির্বাচনে দাঁড়ানোর জন্য রামাফোসাকে অবশ্যই এএনসি নেতা হিসাবে পুনরায় নির্বাচিত হতে হবে।

XS
SM
MD
LG