অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অভিবাসন নিষেধাজ্ঞা রদ করতে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে বাইডেন প্রশাসন


যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয়প্রার্থী অভিবাসীরা টেক্সাসের ব্রাউনসভিলের সাথে যুক্তরাষ্ট্রের সীমান্তের কাছে একটি অস্থায়ী শিবির স্থাপন করেছে। যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট বলেছে, টাইটেল ফোর্টি টু আপাতত যেভাবে আছে সেভাবেই থাকা উচিত, মেক্সিকোর মাতামোরোস, মেক্সিকো ২০ ডিসেম্বর, ২০২২।

মঙ্গলবার বাইডেন প্রশাসন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টকে ১৯টি রিপাবলিকান নেতৃত্বাধীন রাজ্যের অনুরোধ প্রত্যাখ্যান করার আহ্বান জানিয়েছে। বাইডেন প্রশাসন, যুক্তরাষ্ট্র-মেক্সিকো সীমান্তে নিষেধাজ্ঞা জারি করে, হাজার হাজার আশ্রয়-প্রার্থীকে রাজ্যগুলোর বাধা দেওয়ার বিরোধিতা করে এই আহ্বান জানায়।

তবে প্রশাসন টাইটেল ফোর্টি টু নামে পরিচিত গাইডলাইনটি, " টাইটেল এইট অপারেশনে সুশৃঙ্খল রূপান্তরের" অনুমতি দেওয়ার জন্য অতিরিক্ত এক সপ্তাহ সময় চেয়েছে। ।

একটি আদালতের নথিতে বলা হয়, "সরকার স্বীকার করে যে টাইটেল ফোর্টি টু আদেশের সমাপ্তির ফলে সম্ভবত বিঘ্ন ঘটবে এবং বেআইনী সীমান্ত পারাপারের সাময়িক বৃদ্ধি ঘটবে। সরকার কোনোভাবেই এই সমস্যার গুরুত্ব কমিয়ে দেখতে চায় না।। কিন্তু এই অভিবাসন সমস্যার সমাধান অনির্দিষ্টকালের জন্য বাড়িয়ে প্রয়োজনীয় জনস্বাস্থ্যের ন্যায্যতা বাড়ানো যায় না। ”

প্রশাসন আরও বলেছে, সরকার কংগ্রেস কর্তৃক অনুমোদিত অভিবাসন আইনের উপর নির্ভর করতে প্রস্তুত যা টাইটেল এইট নামে পরিচিত।এটি সবসময়ই যুক্তরাষ্ট্রের শুল্ক বিভাগ এবং সীমান্ত সুরক্ষার ইতিহাস জুড়েই রয়েছে।

টাইটেল এইট এর অধীনে, যারা কাগজপত্র ছাড়াই সীমান্তে পৌঁছেছেন বা বন্দরগুলির মধ্যে দিয়ে প্রবেশের চেষ্টা করছেন তাদের ইমিগ্রেশন আদালত দ্বারা সিদ্ধান্ত না নিয়ে তাদের মামলা প্রত্যাহার করা যেতে পারে। তাছাড়া ,যদি কোনও অভিবাসন-প্রার্থী আশ্রয় দাবি করতে চান তবে অপসারণ বা নির্বাসনের আগে একজন আশ্রয় কর্মকর্তার দ্বারা তাদের সাক্ষাত্কার নেওয়া হয়।

ফেডারেল আইন অন্যান্য দেশের লোকদের যুক্তরাষ্ট্রে আশ্রয় চাইতে অনুমতি দেয় যদি তারা নিজ দেশে নিপীড়নের ভয় পায়। তাদের অবশ্যই যুক্তরাষ্ট্রে উপস্থিত থাকতে হবে এবং মোট পাঁচটি কারণের মধ্যে একটিতে নিপীড়নের ভয় প্রমাণ করতে হয়। যেমন, জাতি, ধর্ম, জাতীয়তা, রাজনৈতিক মতামত, বা একটি নির্দিষ্ট সামাজিক শ্রেণীর সদস্যতা। এছাড়াও পাঁচটি বিভাগের মধ্যে অস্পষ্টভাবে যৌনতা বা বর্ণ বৈষম্যের মতো বিষয় অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

করোনাভাইরাস মহামারির শুরুতে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে টাইটেল ফোর্টি টু প্রয়োগ করা শুরু হয় । যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল জানিয়েছে, জনস্বাস্থ্য রক্ষায় এই পদক্ষেপের আর প্রয়োজন নেই এবং প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রশাসন বলেছে, তারা এই নীতির অবসান ঘটাতে চায়।

হোয়াইট হাউজের প্রেস সেক্রেটারি কারিন জ্যঁ-পিয়েরে সোমবার বলেছেন, “নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার অর্থ এই নয় যে সীমান্ত খোলা রয়েছে।“

সিজার কনট্রেরাস এই প্রতিবেদনে অবদান রেখেছেন।

XS
SM
MD
LG