অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অনুমোদনের জন্য সংবাদ পাঠাতে গণমাধ্যমের প্রতি সোমালি সরকারের নির্দেশ


সোমালিয়ার রাজধানী মোগাদিসুতে রেডিও রিসালায় একটি সাক্ষাৎকার নেয়া হচ্ছে। (রিসালা মিডিয়া কর্পোরেশন)

সোমালি সরকার গণমাধ্যমের প্রতি তাদের সর্বসাম্প্রতিক নির্দেশনায় অনুরোধ করেছে, স্থানীয় সংবাদ মাধ্যমগুলো যাতে সম্প্রচারের আগের অনুমোদনের জন্য তাদের বিষয়বস্তু জমা দেয়।

মোগাদিসুর বেশ কয়েকটি মিডিয়া হাউজ এই সপ্তাহে ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছে, প্রেসিডেন্টের যোগাযোগ কার্যালয় তাদেরকে সংবাদের বিষয়বস্তু প্রচারের আগে কর্তৃপক্ষের কাছে জমা দেয়ার নির্দেশ দিয়েছে।

নির্দেশিকাটি ছিল গণমাধ্যমের প্রতি সরকারের জারি করা সর্বসাম্প্রতিক আদেশ। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে সাংবাদিকদেরকে আল-শাবাব সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশ করা থেকে এবং জঙ্গি গোষ্ঠীকে শুধুমাত্র খাওয়ারিজ হিসেবে উল্লেখ করার জন্য সতর্ক করা হয়েছিল। খাওয়ারিজ শব্দটির শিথিল অনুবাদ হলো “যারা ইসলাম ধর্ম থেকে বিচ্যুত।”

সোমালি সরকার আল-শাবাবের বিরুদ্ধে সামরিক অভিযান চালাচ্ছে। তবে সাংবাদিকরা বলছে আল-শাবাবের সংবাদ সংগ্রহ করা সংক্রান্ত নির্দেশনা সংবাদপত্রের স্বাধীনতাকে সীমিত করবে এবং তাদেরকে প্রতিশোধের ঝুঁকিতে ফেলতে পারে।

সোমালি সাংবাদিক সিন্ডিকেটের মুখপাত্র মোহাম্মদ বুলবুল বলেছেন, তিনি এই আদেশকে স্বাধীনতা খর্ব করার আরেকটি পদক্ষেপ হিসেবে দেখছেন।

সোমালিয়ায় গণমাধ্যমের একটি গুরুত্বপূর্ণ সংগঠন সোমালি জার্নালিস্ট সিন্ডিকেট এই নির্দেশের প্রতিবাদ করে কর্তৃপক্ষের চাপের মুখে পড়েছে। সংগঠনটির সেক্রেটারি-জেনারেল আবদাল্লে আহমেদ মুমিন অক্টোবর এবং নভেম্বরে দুবার গ্রেপ্তারের পর বর্তমানে জামিনে রয়েছেন।

সাংবাদিকরা বলেছেন, বিষয়বস্তু জমা দেয়া সম্পাদকীয় স্বাধীনতা এবং জনসাধারণের জানার অধিকারে হস্তক্ষেপ করবে।

গণমাধ্যম নজরদারি গোষ্ঠীগুলো বলছে, সোমালিয়া ইতোমধ্যেই সাংবাদিকদের জন্য কঠিন অবস্থার সৃষ্টি করেছে। হামলা এবং হুমকির পাশাপাশি সাংবাদিকদের গ্রেপ্তারের ঝুঁকিও রয়েছে।

সর্বসাম্প্রতিক উদাহরণ হলো, ব্রিটিশ-ভিত্তিক ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক জামাল ওসমানকে গত শনিবার মোগাদিসুতে গ্রেপ্তার করা হয় এবং যুক্তরাজ্যে ফেরত পাঠানো হয়। তিনি আল-শাবাবের সংবাদ সংগ্রহের জন্য পুরস্কৃত হয়েছেন। তার নির্বাসনের কারণ প্রকাশ করা হয়নি।

XS
SM
MD
LG