অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অধিকার কর্মীর যাবজ্জীবন সাজা বহাল রেখেছে তুরস্কের আদালত


আনাদোলু সংস্কৃতি কেন্দ্রে ২০২১ সালের ১৫ অক্টোবর প্রকাশিত তারিখবিহীন এই হ্যান্ডআউট ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে প্যারিসীয় বংশোদ্ভূত তুর্কি সমাজসেবী ওসমান কাভালা ইস্তাম্বুলে একটি অনুষ্ঠানের সময় বক্তব্য রাখছেন। ফাইল ছবি।

বুধবার তুরস্কের একটি আপিল আদালত প্রেসিডেন্ট রেজেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ানের শীর্ষস্থানীয় একজন সমালোচকের সাজা বহাল রেখেছে। তাকে কারাদণ্ড প্রদানের ফলে পশ্চিমের সাথে আঙ্কারার অস্বস্তিকর সম্পর্কের মধ্যে আরও উত্তেজনা বৃদ্ধি পেয়েছে।

প্যারিসে জন্মগ্রহণকারী কর্মী এবং সমাজসেবী ওসমান কাভালাকে ২০১৩ সালের বিক্ষোভে অর্থায়ন করে সরকারের পতন ঘটানোর চেষ্টা করার অভিযোগে এপ্রিল মাসে তাকে প্যারোলের সম্ভাবনা ছাড়াই যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছিল।

২০১৭ সালের অক্টোবরে কাভালার অপ্রত্যাশিত গ্রেপ্তারের পর থেকে দীর্ঘ সময় ধরে তার বিচারের কারণে নেটো সদস্য তুরস্কের সঙ্গে তার প্রধান পশ্চিমা মিত্রদের সাথে কৌশলগত কিন্তু উত্তেজনাপূর্ণ সম্পর্কে টানাপড়েন দেখা দিচ্ছে।

কাভালাকে ২০১৩ সালের বিক্ষোভে অর্থায়নের জন্য প্রথমে অভিযুক্ত করা হয়েছিল। ওই বিক্ষোভকে কিছু বিশ্লেষক এরদোয়ানের দুই দশকের শাসনের শেষার্ধে এরদোয়ানের আরও কর্তৃত্ববাদী প্রদর্শন হিসেবে দেখেন।

একটি আদালত তাকে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে মামলা থেকে খালাস এবং মুক্তি দেয়; তবে তিনি তার স্ত্রীর কাছে বাড়ি ফেরার সুযোগ পাওয়ার আগেই পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে।

এরপর আরেকটি আদালত তাকে এরদোয়ানের বিরুদ্ধে ২০১৬ সালের ব্যর্থ অভ্যুত্থান প্রচেষ্টায় জড়িত থাকার অভিযোগে অভিযুক্ত করে। ওই ব্যর্থ অভ্যুত্থানে ইস্তাম্বুল এবং আঙ্কারায় ২৫০ জনের বেশি মানুষ মারা যায়।

কাভালা শেষ পর্যন্ত উভয় দফার অভিযোগের মুখোমুখি হন।

২০২০ সালে যে অভিযোগ থেকে তাকে মুক্তি দেয়া হয়েছিল আদালত শেষ পর্যন্ত তাকে সেই একই অভিযোগের জন্য দোষী সাব্যস্ত করে।

জার্মানি অবিলম্বে তার মুক্তি দাবি করেছে। যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, তারা এই রায়ে “গভীরভাবে উদ্বিগ্ন।”

তুরস্ক ইতোমধ্যে কাভালার মুক্তির দাবিতে ইউরোপীয় মানবাধিকার আদালতের রায়কে উপেক্ষা করেছে।

XS
SM
MD
LG