অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

‘আমার ভয়, আমি তাকে আর কখনো দেখতে পাব না’: ইরানে আটক পর্যটকের বাবা


ইরান

গত তিন মাস ধরে ইরানে আটক থাকা ফরাসি আইরিশ ট্যুর অপারেটর বার্নার্ড ফেলার ‘ভুল সময়ে ভুল জায়গায় ছিলেন’। বুধবার তার বোন এ কথা বলেন।

ফেলানের পরিবার দ্য আইরিশ টাইমসের সাথে সে যেই কূটনৈতিক বিরোধে জড়িয়ে গেছে সেই সম্পর্কে কথা বলেছেন।

টাইমসের মতে, ফেলানকে (৬৪) ৩ অক্টোবর ইরানি পুলিশ গ্রেপ্তার করেছিল। তাকে উত্তর-পূর্ব ইরানের মাশহাদের ভাকিলাবাদ কারাগারে রাখা হয়েছে। তাকে যে সেলে রাখা হয়েছে সেখানে আরও ১৫ জন বন্দি রয়েছেন। টাইমস এ সংবাদ জানায়।

ইরান ফেলানের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলেছে, এর মধ্যে রয়েছে, ইরানের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ছড়ানো এবং পুলিশ অফিসারদের ছবি তোলা। ফেলান এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছে।

আইরিশ নিরাপত্তা সূত্র মনে করে, ফরাসি সরকারকে একটি বার্তা পাঠানোর জন্য তাকে তুরুপের তাস হিসেবে ব্যবহার করা হচ্ছে; বার্তাটি হলো, ‘আমাদের বিষয়াদি থেকে দূরে থাকুন।’। টাইমস এ কথা জানায়।

ফেলান ফ্রান্সে থাকেন এবং ফরাসি পাসপোর্ট নিয়ে ইরানে এসেছিলেন।

সেপ্টেম্বরে ইরানি কুর্দি নারী মাহসা আমিনি (২২) পুলিশ হেফাজতে থাকাকালীন মারা যান। পোশাক বিধি লঙ্ঘনের জন্য দেশটির নৈতিকতা পুলিশ তাকে আটক করেছিল। তার মৃত্যু ইরানে এবং বিশ্বজুড়ে অব্যাহত বিক্ষোভের জন্ম দেয়।

তেহরান অন্যান্য দেশগুলোর সাথে ফ্রান্সকেও বিক্ষোভ উস্কে দেয়ার চেষ্টা করার জন্য অভিযুক্ত করেছে। ফরাসি সরকার বলেছে, তাদের কমপক্ষে ৭ জন নাগরিককে ইরান জিম্মি করে রেখেছে।

টাইমস জানিয়েছে, আইরিশ এবং ফরাসি কূটনীতিকরা ফেলানের মুক্তি নিশ্চিত করতে পর্দার আড়ালে কাজ করছেন।

মন্তব্যের জন্য অনুরোধ করা হলে ডাবলিনে ফরাসি এবং ইরানের দূতাবাস সাড়া দেয়নি।

XS
SM
MD
LG