অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিএনপির ২৭ দফা চলমান আন্দোলনের অংশ: আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী


গত ১৯ ডিসেম্বর ‘রাষ্ট্রের কাঠামোগত সংস্কার’-এর একটি ২৭-দফা রূপরেখা ঘোষণা করে বিএনপি। এতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদের নির্বাহী ক্ষমতার ভারসাম্য এবং আইনসভার উচ্চকক্ষ প্রবর্তনসহ রাষ্ট্র ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হয়।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, রাষ্ট্র সংস্কারের জন্য তাদের দলের ২৭ দফা আওয়ামী লীগ সরকারের পতনের লক্ষ্যে চলমান আন্দোলনের অংশ।রবিবার (৮ জানুয়ারি) এক আলোচনায় তিনি একথা বলেন। এই বিএনপি নেতা আরও বলেন, “২৭ দফার পেছনের দর্শন হলো জনগণকে বোঝানো যে ভবিষ্যত বাংলাদেশ কেমন হবে এবং সে লক্ষ্যে বর্তমান আন্দোলনের সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে তাদের উৎসাহিত করা।”

তিনি বলেন, “আমি বারবার বলে আসছি যে এই ২৭ দফা চলমান আন্দোলনের অংশ। এটা আলাদা নয়।” ২৭ দফার তাৎপর্য সম্পর্কে তিনি বলেন, “এসব দফা বাস্তবায়ন ছাড়া ভবিষ্যতে দেশ পরিচালনা সম্ভব হবে না।”

রাজধানী ঢাকার জাতীয় প্রেসক্লাবে ডক্টরস অ্যাসোসিয়েশন অফ বাংলাদেশ (ড্যাব)-এর ঢাকা উত্তর মহানগর শাখা এবং বিএনপি মিডিয়া সেল যৌথভাবে ‘রাষ্ট্রীয় কাঠামো মেরামত ব্যাখ্যা ও বিশ্লেষণ’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করে। আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বলেন, “সংস্কার করতে না পারলে দেশ ধ্বংস হয়ে যাবে। তাই দেশের স্বার্থে আমাদের এই ২৭ দফা বাস্তবায়ন করতে হবে।”

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য খসরু বলেন, “অনেকেই বলছেন বিএনপি যখন সরকার উৎখাতের আন্দোলন করছে, এর মধ্যে আবার কেন ২৭ দফা নিয়ে আলোচনা করছে। বর্তমান সরকার ক্ষমতা থেকে সরে গেলে তারা (জনগণ) কী লাভ করবে সে সম্পর্কে তাদেরকে ধারণা দেয়ার চেষ্টা করছে এই ২৭ দফা।”

যারা আন্দোলন এবং এর ইতিবাচক ফলাফল নিয়ে এখনও বিভ্রান্ত, তাদেরকে ২৭ দফা পর্যালোচনা করে রাজপথে নামার আহ্বান জানান আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী। গত ১৯ ডিসেম্বর বিএনপি ‘রাষ্ট্রের কাঠামোগত সংস্কার’-এর একটি ২৭-দফা রূপরেখা ঘোষণা করে। এতে রাষ্ট্রপতি, প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদের নির্বাহী ক্ষমতার ভারসাম্য এবং আইনসভার উচ্চকক্ষ প্রবর্তনসহ রাষ্ট্র ব্যবস্থায় আমূল পরিবর্তনের প্রস্তাব করা হয়।

XS
SM
MD
LG