অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জঙ্গীদের কাছ থেকে দুইটি শহর দখল করে নিয়েছে সোমালিয়ার বাহিনী


সোমালিয়ার মানচিত্র

সোমালিয়ার সরকার সোমবার জানিয়েছে যে মধ্যাঞ্চলের গালমুডুগ অঙ্গরাজ্যে ইতোপূর্বে জঙ্গীগোষ্ঠী আল-শাবাব এর নিয়ন্ত্রণে থাকা দুইটি শহর সরকারি বাহিনী দখল করেছে।

প্রতিরক্ষামন্ত্রী আবদুলকাদির মোহামেদ নুর ভিওএ সোমালি-কে বলেন যে, জঙ্গীরা লড়াই না করে পালিয়ে গেলে সরকারি বাহিনী ও স্থানীয় যোদ্ধারা হারারধেরে ও গ্যালকাড দখল করে।

হারারধারে একটি গুরুত্বপূর্ণ উপকূলীয় শহর এবং জলদস্যুদের একটি সাবেক কেন্দ্র। সোমবার পর্যন্ত আল-শাবাব এর হাতে থাকা গালমুডুগ অঙ্গরাজ্যের বৃহত্তম ও কৌশলগতভাবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ শহর ছিল হারারধেরে।

নুর বলেন, “আজকের দিনটি সোমালিয়ার মানুষের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন, এটি সোমালিয়ার মানুষের জন্য একটি বিজয়। গ্যালকাড ও হারারধেরে ডিস্ট্রিক্টগুলোর নিয়ন্ত্রণ নিতে আমরা সফল হয়েছি।”

তিনি বলেন, আঞ্চলিক ও স্থানীয় যোদ্ধাদের সহায়তায় উভয় শহরের দখল নেওয়ার অভিযানে সোমালিয়ার সরকারি বাহিনীগুলো নেতৃত্ব দেয়।

নুর বলেন, হারারধেরে বহুলাংশেই খালি এবং তিনি আল-শাবাবের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন যে সরকারি সৈন্য এসে পৌঁছানোর আগে তারা বেসামরিক মানুষজনকে শহরটি থেকে “স্থানচ্যুত” করেছে। তিনি বলেন, বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলোও বন্ধ হয়ে রয়েছে।

তিনি বলেন যে, বাসিন্দাদের শহরে ফিরিয়ে আনতে সরকার কাজ করবে।

মোগাদিশু থেকে ৩৭৫ কিলোমিটার উত্তরে অবস্থিত গ্যালকাড ও হারারধেরে দখল করা এমন বিষয়ের প্রতি ইঙ্গিত করে যে, সোমালিয়ার মধ্যাঞ্চলে আল-শাবাব এর বিরুদ্ধে সরকারের নেতৃত্বাধীন অভিযানে অগ্রগতি হচ্ছে।

আগস্ট মাসে অভিযানটি আরম্ভ হওয়ার পর থেকে শত শত জঙ্গীকে মেরে ফেলা ও পার্শ্ববর্তী হিরশাবেল অঙ্গরাজ্যে ডজনকয়েক জনবসতি দখলের খবর জানিয়েছে সরকার।

এছাড়াও, আল-শাবাব এর আয় সংক্রান্ত কর্মকাণ্ড সীমিত করার প্রচেষ্টায় জঙ্গীগোষ্ঠীটির সাথে সম্পর্কিত থাকার অভিযোগে শত শত ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ও মোবাইল অ্যাকাউন্টও বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে বলে সরকার জানিয়েছে।

XS
SM
MD
LG