অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ছয় দশকে প্রথমবারের মত হ্রাস পেল চীনের জনসংখ্যা


বেইজিংয়ের এক সড়ক দিয়ে এক ব্যক্তির কাঁধে চড়ে যাচ্ছে এক মেয়ে শিশু, ৭ অক্টোবর ২০২২। (ফাইল ফটো)

চীন জানিয়েছে যে গত বছর তাদের জনসংখ্যা হ্রাস পেয়েছে। বিশ্বের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির এই দেশটিতে গত ছয় দশকের মধ্যে প্রথমবারের মত জনসংখ্যা হ্রাসের ঘটনা ঘটল।

মঙ্গলবার পরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রকাশিত তথ্যে দেখা যায় যে, ২০২২ সালে চীনে ৯৫ লক্ষ ৬০ হাজার শিশু জন্মগ্রহণ করে এবং ১ কোটি ৪ লক্ষ ১০ হাজার মানুষের মৃত্যু হয়। এর ফলে ৮,৫০,০০০ জন জনসংখ্যা হ্রাস পায়। ১৯৫০ এর দশকের শেষদিকের পর থেকে এই প্রথমবার দেশটিতে জনসংখ্যা হ্রাস পেল। ঐ সময়ে মাও যে দং এর ‘গ্রেট লিপ ফরোয়ার্ড’ নামক পরীক্ষামূলক অর্থনৈতিক পদক্ষেপগুলোর কারণে ব্যাপক দুর্ভিক্ষ দেখা দিয়েছিল, যাতে লক্ষ লক্ষ মানুষের মৃত্যু হয়।

হ্রাসমান জন্মহারটি চীনের কয়েক দশকের নীতির ফলাফল, যেই নীতি অনুযায়ী পরিবারগুলো মাত্র একটি সন্তান গ্রহণ করতে পারত। ২০১৬ সালে চীন ঐ নীতি শিথিল করে, এবং তারপর থেকে মানুষজনকে পরিবার আরম্ভ করতে উৎসাহিত করতে বেশকিছু প্রণোদনা চালু করেছে, যার মধ্যে নগদ অর্থ প্রদানও অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

তা সত্ত্বেও চীনের অনেক তরুণ যুগলই হয় শুধুমাত্র একটি সন্তান গ্রহণ করছে, বা কোন সন্তানই নিচ্ছে না। ১৪১ কোটি জনসংখ্যার এই দেশটিতে জীবনধারণের ব্যয় বৃদ্ধি পাওয়া এটির একটি কারণ।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে, জন্মহার হ্রাস পাওয়ার ফলে চীনের অর্থনীতির চাকা সচল রাখার মত যথেষ্ট সংখ্যক কর্মক্ষম বয়সের তরুণ থাকবে না। এছাড়াও দ্রুত বর্ধনশীল বয়স্ক জনসংখ্যার ভরণপোষণের জন্য ইতোমধ্যেই চাপের মধ্যে থাকা পেনশন ব্যবস্থাটিতে অবদান রাখার মত তরুণের সংখ্যাও যথেষ্ট থাকবে না।

XS
SM
MD
LG