অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ইরান 'কয়েকটি পারমাণবিক অস্ত্রের' জন্য পর্যাপ্ত উপাদান প্রক্রিয়াজাত করেছে, বলছেন জাতিসংঘের পরমাণু শক্তি সংস্থার প্রধান


ইরানের পরমাণু শক্তি সংস্থা কর্তৃক প্রকাশিত এই ছবিতে প্রযুক্তিবিদরা রাজধানী তেহরানের ১৫০ মাইল (২৫০ কিলোমিটার) দক্ষিণ-পশ্চিমে আরাকের কাছে ভারী জল চুল্লির সেকেন্ডারি সার্কিটে কাজ করছেন। ( ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৯)

জাতিসংঘের পরমাণু পর্যবেক্ষক সংস্থার প্রধান বলেছেন, তেহরানের পারমাণবিক কার্যক্রম বন্ধ করতে ২০১৫ সালের চুক্তিটি পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে তিনি আগামী মাসে ইরান সফর করবেন।

মঙ্গলবার ব্রাসেলসে ইউরোপীয় পার্লামেন্টের নিরাপত্তা ও প্রতিরক্ষা উপকমিটির সদস্যদের সামনে বক্তব্য রাখতে গিয়ে আন্তর্জাতিক পরমাণু শক্তি সংস্থার মহাপরিচালক রাফায়েল গ্রোসি বলেন, ইসলামি প্রজাতন্ত্রটি ৬০ শতাংশ বিশুদ্ধতা সমৃদ্ধ ৭০ কেজি ইউরেনিয়াম সংগ্রহ করেছে।

পারমাণবিক অস্ত্র তৈরিতে ব্যবহারযোগ্য আরও ১ হাজার কেজি উপকরণকে ২০ শতাংশ পরিশোধন করা হয়েছে, যা দিয়ে "এ পর্যায়ে একটি নয়--একাধিক পারমাণবিক অস্ত্র নির্মাণ করা সম্ভব"।

পারমাণবিক অস্ত্র তৈরির সীমাটি ৯০ শতাংশ বিশুদ্ধতায় বিবেচিত হয়। কিন্তু গ্রোসি প্যানেলকে বলেন, ইরানের সমৃদ্ধ ইউরেনিয়ামের বিশাল মজুদ থাকার অর্থ এই নয় যে তাদের পারমাণবিক অস্ত্র রয়েছে।

গ্রোসি আরও বলেন, আইএইএ এখন আর ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচি রক্ষণাবেক্ষণ করছে না।আইএইএ তাদের ঘোষিত পারমাণবিক স্থাপনায় স্থাপিত সংস্থার ২৭টি ক্যামেরা বন্ধ করে দিয়েছে।

ইরান এবং ব্রিটেন, চীন, ফ্রান্স, জার্মানি, রাশিয়া এবং যুক্তরাষ্ট্র এই ছয়টি বিশ্ব শক্তি যৌথ বিস্তৃত কর্মপরিকল্পনায় স্বাক্ষর করেছিল। এটি যুক্তরাষ্ট্র এবং আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞা থেকে মুক্তির বিনিময়ে ইরানের পারমাণবিক কর্মসূচিকে সীমাবদ্ধ করে।

সাবেক প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্পের অধীনে ২০১৮ সালে যুক্তরাষ্ট্র এই চুক্তি থেকে সরে আসে। তিনি যুক্তি দিয়েছিলেন, পরিকল্পনাটি অকার্যকর এবং তা ইরানের উপর তথাকথিত "সর্বাধিক চাপ" এর উদ্যোগ আরোপ করে যা আন্তর্জাতিক বাজারে ইরানের তেল বিক্রির ক্ষমতাকে সীমাবদ্ধ করে।

মূল চুক্তিটি পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে স্বাক্ষরকারীরা ২০২১ সাল থেকে বেশ কয়েক দফা আলোচনা করেছেন।

প্রতিবেদনের কিছু তথ্য এসেছে অ্যাসোসিয়েটেড প্রেস, রয়টার্স এবং এজেন্সি ফ্রান্স-প্রেস থেকে।

XS
SM
MD
LG