অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পাতাল মেট্রোরেল বাংলাদেশের অগ্রগতির আরেকটি মাইলফলক—প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি পাতাল মেট্রোরেলকে তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশের অগ্রগতির পথে আরেকটি মাইলফলক হিসেবে অভিহিত করেছেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “বাংলাদেশের উন্নয়ন যাত্রায় আরেকটি মাইলফলক অর্জিত হলো”।

বৃহস্পতিবার (২ ফেব্রুয়ারি) বাংলাদেশের প্রথম পাতাল মেট্রোরেল প্রকল্প ম্যাস র‌্যাপিড ট্রানজিট লাইন-১ (এমআরটি-১) নির্মাণ কাজের উদ্বোধন উপলক্ষে রাজধানী ঢাকার উপকণ্ঠে পূর্বাচলে আয়োজিত অনুষ্ঠানে শেখ হাসিনা এসব কথা বলেন।

এ সময় তিনি নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে নির্মাণকাজের ফলক উন্মোচন করে ৩১ দশমিক ২৪১ কিলোমিটার দীর্ঘ এমআরটি লাইন ১–এর ডিপো নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেন।

২০২৬ সালের মধ্যে আনুমানিক ৫২ হাজার ৫৬১ কোটি ৪৩ লাখ টাকা ব্যয়ে পাতাল ও এলিভেটেড উভয় সুবিধা সম্বলিত এমআরটি লাইন-১ নির্মিত হবে।

শেখ হাসিনা বলেন, তার দলের ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে ঘোষিত সমৃদ্ধির পথে বাংলাদেশ স্লোগান অনুযায়ী বাংলাদেশ এক অদম্য গতিতে সমৃদ্ধির দিকে এগিয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, “আমরা একের পর এক আমাদের প্রতিশ্রুতিগুলো পূরণ করছি”।

তিনি আরও বলেন, তার সরকার ২০০৮ সালের নির্বাচনের আগে ঘোষিত প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী রূপকল্প-২০২১ বাস্তবায়ন করেছে এবং সেইসঙ্গে মেট্রোরেল নির্মাণের মাধ্যমে তার ২০১৮ সালের নির্বাচনী ইশতেহারে দেওয়া আরেকটি প্রতিশ্রুতি রক্ষা করেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, “আওয়ামী লীগ কোনো প্রতিশ্রুতি দিলে তা পালন করবে”।

তিনি আরও বলেন, “কাজের মাধ্যমে আওয়ামী লীগ জনগণের মন জয় করে ভোট পাচ্ছে”।

শেখ হাসিনা বলেন, ২০০৮ সালের সংসদ নির্বাচনে বিএনপি-জামায়াত জোট ৩০০ আসনের মধ্যে মাত্র ৩০টি আসন পেয়েছিল। এত বছর তার সরকার জনগণের কল্যাণে কাজ করায় জনগণ এখন আওয়ামী লীগকে ভোট দেয়।

শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা জনগণের মঙ্গল নিশ্চিত করেছি। তাই জনগণ আমাদের ভোট দিচ্ছে। আমরা জনগণের আস্থা ও ভরসা পাচ্ছি। আমরা ভোট পাচ্ছি, আমাদের কাজের মাধ্যমে মানুষের মন জয় করছি”।

বুধবারের সংসদীয় উপনির্বাচনের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বগুড়া ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের উপনির্বাচনেও আওয়ামী লীগের নির্বাচনী প্রতীক নৌকা জয়ী হয়েছে। যারা নৌকায় ভোট দিয়েছেন তাদের প্রতি তিনি আন্তরিক ধন্যবাদ জানান।

প্রথম পাতাল মেট্রো লাইনের দুটি অংশ থাকবে। একটি হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর (বিমানবন্দর রুট) পর্যন্ত ১৯ দশমিক ৮৭২ কিলোমিটার অংশ ভূগর্ভস্থ এবং দ্বিতীয়টি নতুন বাজার থেকে পূর্বাচল (পূর্বাচল রুট) পর্যন্ত প্রায় ১১ দশমিক ৩৭ কিলোমিটার এলিভেটেড লাইন।

বিমানবন্দর রুটের ১৬ দশমিক ৪ কিলোমিটার পাতাল অংশে ১২টি স্টেশন এবং পূর্বাচল রুটে সাতটি স্টেশন রয়েছে।

এমআরটি লাইন-১ বাস্তবায়নে জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেশন (জাইকা) ৩৯ হাজার ৪৫০ কোটি ৩২ লাখ টাকা অর্থায়ন করবে এবং বাকি ১৩ হাজার ১১১ কোটি ১১ লাখ টাকা বাংলাদেশ সরকারের তহবিল থেকে দেওয়া হবে।

এমআরটি লাইন-১ দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ৮ লাখ যাত্রী যাতায়াত করতে পারবেন। বিমানবন্দর থেকে কমলাপুর পর্যন্ত ১২টি আন্ডারগ্রাউন্ড স্টেশনে বিরতিসহ যাত্রীদের মাত্র ২৫ মিনিট লাগবে এবং নতুন বাজার থেকে পূর্বাচল পর্যন্ত ৭টি স্টেশনে বিরতিসহ ২১ মিনিট সময় লাগবে।

এছাড়া যাত্রীরা কমলাপুর থেকে নতুন বাজার স্টেশনে ইন্টারচেঞ্জ দিয়ে ১৬টি স্টেশনে বিরতি দিয়ে মাত্র ৪০ মিনিটের মধ্যে পূর্বাচল পৌঁছাতে পারবেন।

২০৩০ সালের মধ্যে রাজধানী ঢাকায় মোট ৬টি মেট্রোরেল রুট উদ্বোধন করা হবে।

জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক) ২০১৯ সালে ৫২ হাজার ৫৬১ কোটি ৪৩ লাখ টাকায় এমআরটি লাইন-১ প্রকল্প অনুমোদন করেছে।

গত বছরের ২৮ ডিসেম্বর প্রধানমন্ত্রী এমআরটি লাইন ৬–এর উত্তরা-আগারগাঁও অংশে (উত্তরা-আগারগাঁও-ফার্মগেট-টিএসসি-মতিঝিল-কমলাপুর) দেশের প্রথম মেট্রোরেল সেবার উদ্বোধন করেন। মতিঝিল পর্যন্ত এমআরটি-৬ লাইনের কাজ ২০২৩ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ হবে এবং ২০২৫ সালের জুনের মধ্যে কমলাপুর পর্যন্ত সম্প্রসারিত হবে।

এমআরটি-৫ (উত্তর রুট) নির্মাণ কাজ ২০২৩ সালের জুলাই মাসে উদ্বোধন করা হবে। এমআরটি-৫ (উত্তর রুট) লাইন হবে সাভারের হেমায়েতপুর থেকে গাবতলী, মিরপুর ও গুলশান হয়ে ভাটারা পর্যন্ত।

বাংলাদেশ সরকারের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী এবং স্থানীয় সংসদ সদস্য গোলাম দস্তগীর গাজী, বাংলাদেশে জাপানের রাষ্ট্রদূত ইওয়ামা কিমিনোরি, সড়ক পরিবহন ও মহাসড়ক বিভাগের সচিব এ বি এম আমিন উল্লাহ নূরী, ঢাকা ম্যাস ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের (ডিএমটিসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. এম এ এন সিদ্দিক এবং জাইকা বাংলাদেশের প্রধান প্রতিনিধি ইচিগুচি তোমোহাইড বক্তব্য দেন।

নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী ও বাগেরহাট-১ আসনের সংসদ সদস্য এস কে হেলাল উদ্দিন প্রমুখ মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।

XS
SM
MD
LG