অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আলবেনিয়ায় নতুন বিমানবন্দর নির্মাণের কারণে জলাশয় হুমকির মুখে, বলছেন পরিবেশবাদীরা


আলবেনিয়ার ভ্লোরাতে একটি সুরক্ষিত এলাকায় বহু ফ্ল্যামিঙ্গো পাখি দেখা যাচ্ছে। ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩। ফাইল ছবি।
আলবেনিয়ার ভ্লোরাতে একটি সুরক্ষিত এলাকায় বহু ফ্ল্যামিঙ্গো পাখি দেখা যাচ্ছে। ২৮ জানুয়ারি, ২০২৩। ফাইল ছবি।

আলবেনিয়ার উপকূলীয় শহর ভলোরার কাছে নতুন একটি মাল্টিমিলিয়ন ইউরো ব্যয়ে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের অর্থ এলাকার বাসিন্দাদের জন্য শত শত কর্মসংস্থান। কিন্তু পরিবেশবাদীরা সতর্ক করেছেন, এই বিমানবন্দর ফ্ল্যামিঙ্গো, পেলিকান এবং লাখ লাখ অন্যান্য পরিযায়ী পাখির আবাস সুরক্ষিত জলাশয়ের পরিবেশের অপূরণীয় ক্ষতি করতে পারে।

আলবেনিয়ার ১০৪ মিলিয়ন ইউরো (সাড়ে ১২ কোটি ডলার) ব্যয়ে নতুন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর- যা দেশটির তৃতীয় বিমানবন্দর- বর্তমানে ভ্লোরা শহরের প্রায় ১০ কিলোমিটার (৬ মাইল) উত্তরে নার্তা লেগুনে নির্মিত হচ্ছে। ২০২৫ সালে এটির কার্যক্রম শুরু হবে। বিমানবন্দরটিতে ৩ দশমিক ২ কিলোমিটার (২ মাইল) দীর্ঘ রানওয়ে থাকবে এবং বছরে ২০ লাখ যাত্রী এতে যাতায়াত করবে বলে আশা করা হচ্ছে।

কিন্তু প্রোটেকশন এন্ড প্রিজারভেশন অফ ন্যাচারাল এনভায়রনমেন্ট ইন আলবেনিয়ার (পিপিএনইএ) আলেক্সান্দার ট্রাজস বলেন, বিমানবন্দরটি অতি উত্তরের নার্তা লেগুন এবং কারাভাস্তা উপহ্রদের জন্য গুরুতর একটি হুমকি তৈরি করেছে। পরিবেশবাদীরা এটির নির্মাণ বন্ধ করার জন্য আদালতের লড়াই শুরু করেছে।

লাখ লাখ পরিযায়ী পাখি অ্যাড্রিয়াটিক যাত্রাপথে বিশ্রামের জন্য উপহ্রদগুলো ব্যবহার করে। এই পথ পাখিরা মধ্য এবং উত্তর ইউরোপ থেকে আফ্রিকায় যাতায়াত করতে ব্যবহার করে। প্রতি বছর ৩ হাজার পর্যন্ত ফ্ল্যামিঙ্গো এবং পেলিক্যান লেগুনগুলোতে উড়ে যায়।

পর্যটন এবং পরিবেশ মন্ত্রক বলেছে, তারা স্থানীয় এবং বিশেষজ্ঞদের সাথে পরামর্শ করেছে। নতুন বিমানবন্দর কমপক্ষে দেড় হাজার কর্মসংস্থান সৃষ্টি করবে।

কিন্তু গত বছর আলবেনিয়ার ওপর ইউরোপীয় ইউনিয়নের একটি অগ্রগতি প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়েছে যে, “জাতীয় আইন এবং আন্তর্জাতিক জীববৈচিত্র্য সুরক্ষা কনভেনশন যা ইতোমধ্যে অনুমোদন করা হয়েছে তা উপেক্ষা করে” বিমানবন্দরের কাজ ২০২১ সালের ডিসেম্বরে শুরু হয়েছে।

মন্ত্রক বলেছে, “একটি ধারাবাহিক সুরক্ষামূলক পদক্ষেপ প্রয়োগ করা হবে।”

XS
SM
MD
LG