অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

তুরস্কে আবার ভূমিকম্প


তুরস্কের হাতায় প্রদেশের আনতাকিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্পে ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবনের বাইরে অপেক্ষা করছেন পেরিহান ফানসা ও এইফার সারাচ। (২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩)
তুরস্কের হাতায় প্রদেশের আনতাকিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্পে ধ্বংসপ্রাপ্ত ভবনের বাইরে অপেক্ষা করছেন পেরিহান ফানসা ও এইফার সারাচ। (২০ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩)

সোমবার তুরস্ক ও সিরিয়ার সীমান্তে আবার ভূমিকম্প আঘাত হেনেছে। এতে অন্তত ৮ জন মারা গেছে। ২ সপ্তাহ আগেই এ এলাকায় ভয়াবহ ভূমিকম্পে প্রায় ৪৫ হাজার মানুষ মারা গেছে।

সোমবার ভূমিকম্পটি ছিল ৬ দশমিক ৪ মাত্রার এবং তুরস্কের হাতায় প্রদেশের দেফনে শহর ছিল এর কেন্দ্রবিন্দু। ইতোমধ্যে এই এলাকা ৬ ফেব্রুয়ারির ভূমিকম্পে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

নতুন এই ভূমিকম্প সিরিয়া, জর্ডান, লেবানন ও মিশরেও অনুভূত হয়েছে। পরে ৫ দশমিক ৮ মাত্রার একটি ভূমিকম্প পরবর্তী কম্পনও অনুভূত হয় সেখানে।

তুরস্কের অভ্যন্তরীণ মন্ত্রী সুলেমান সয়লু জানান, ৩ জন মারা গেছে ও ২০০ জনেরও বেশি আহত হয়েছে।

উদ্ধারকর্মীরা হাতায় প্রদেশের বেশ কিছু ধ্বসে পড়া ভবন থেকে আটকে পড়া মানুষ উদ্ধারের প্রচেষ্টা চালাচ্ছেন।

সিরিয়ার রাষ্ট্রায়ত্ত সংবাদ মাধ্যম সানা জানিয়েছে, আলেপ্পো প্রদেশে ৬ ব্যক্তি আহত হয়েছে।

সোমবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিজেপ তাইয়্যেপ এরদোয়ান আঙ্কারায় যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র মন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিংকেনের সঙ্গে বৈঠক করেন। ১ দিন আগে ব্লিংকেন তুরস্ক ও সিরিয়ার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে বাড়তি ১০ কোটি ডলার সহায়তা দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন।

নতুন এই ঘোষণায় যুক্তরাষ্ট্রের মোট সহায়তার পরিমাণ ১৮ কোটি ৫০ লাখ ডলার হয়েছে। এই অনুদান উদ্ধার ও পুনরুদ্ধারের উদ্যোগের সঙ্গে জড়িত আন্তর্জাতিক ও বেসরকারি সংগঠনগুলোকে দেওয়া হবে।

সোমবার তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুতের সঙ্গে এক যৌথ সংবাদ সম্মেলনে ব্লিংকেন সংবাদদাতাদের বলেন, “আপনাদের প্রয়োজনের সময় যুক্তরাষ্ট্র আপনাদের সহায়তা দেওয়ার জন্য এখানে এসেছে এবং, যতদিন পর্যন্ত পুনরুদ্ধার ও পুনর্নির্মাণ প্রক্রিয়া চলতে থাকবে, ততদিন আমরা আপনাদের পাশে থাকবো”।

XS
SM
MD
LG