অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বসতি স্থাপনকারীদের নজিরবিহীন তাণ্ডবের পর পশ্চিম তীরে সেনা প্রহরা বৃদ্ধি করছে ইসরাইল


পশ্চিম তীরের নাবলুসের কাছে হাওয়ারা শহরে একটি স্ক্র্যাপ ইয়ার্ডে একজন ফিলিস্তিনি ব্যক্তি পুড়ে যাওয়া গাড়ির পাশ দিয়ে হাঁটছেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩।
পশ্চিম তীরের নাবলুসের কাছে হাওয়ারা শহরে একটি স্ক্র্যাপ ইয়ার্ডে একজন ফিলিস্তিনি ব্যক্তি পুড়ে যাওয়া গাড়ির পাশ দিয়ে হাঁটছেন। ২৭ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩।

সোমবার ইসরাইল অধিকৃত পশ্চিম তীরে আরও শতাধিক সৈন্য পাঠিয়েছে। ফিলিস্তিনি এক বন্দুকধারী দুজন ইসরাইলিকে হত্যা করার এবং একটি ফিলিস্তিনি শহরে বসতি স্থাপনকারীরা তাণ্ডব চালানোর একদিন পর তারা সেনা পাঠানোর এ কার্যক্রম সম্পন্ন করে। কয়েক দশকের মধ্যে এটি এই ধরনের সবচেয়ে খারাপ সহিংস ঘটনা যাতে বাড়িঘর এবং যানবাহন পুড়িয়ে দেয়া হয়।

ফিলিস্তিনি একজন বন্দুকধারী উত্তর পশ্চিম তীরের ফিলিস্তিনি শহর হাওয়ারাতে গুলি করে হার ব্রাছা-র ইহুদি বসতির ২১ বছর এবং ১৯ বছর বয়সী দুই ভাই হিলেল এবং ইয়াগেল ইয়ানিভকে হত্যা করা হলে রবিবারের ঘটনাগুলো সংঘটিত হয়। বন্দুকধারী পালিয়ে যায়।

সোমবার সকালে হাওয়ারা মহাসড়ক পোড়া গাড়ির সারি এবং ধোঁয়ায় কালো হয়ে যাওয়া দালানে পূর্ণ ছিল। সাধারণভাবে ব্যস্ত দোকানপাট বন্ধ ছিল। ফিলিস্তিনি গণমাধ্যম জানিয়েছে, প্রায় ৩০টি বাড়ি এবং গাড়িতে আগুন দেয়া হয়েছে।

আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় রবিবারের সহিংসতার নিন্দা জানিয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস বলেন, গোলাগুলি হামলা এবং তাণ্ডব “কথায় এবং কাজে অবিলম্বে উত্তেজনা প্রশমিত করার প্রয়োজনীয়তার গুরুত্বের ওপর জোর দেয়।”

মুসলিমদের পবিত্র রমজান মাসের আগে উত্তেজনা হ্রাসের লক্ষ্যে আকাবার রেড সি রিসোর্টে জর্ডান সরকার আলোচনার আয়োজন করার পরপরই সহিংসতা শুরু হয়।

ফিলিস্তিনিরা পশ্চিম তীর, পূর্ব জেরুজালেম এবং গাজার সমন্বয়ে একটি ভবিষ্যৎ রাষ্ট্রের জন্য দাবি করে। এগুলো ১৯৬৭ সালের মধ্যপ্রাচ্যের যুদ্ধে ইসরাইল কর্তৃক দখলকৃত অঞ্চল। প্রায় ৭ লাখ ইসরাইলি বসতি স্থাপনকারী পশ্চিম তীর এবং পূর্ব জেরুজালেমে বসবাস করে। আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় ইসরাইলের বসতিগুলোকে অবৈধ এবং শান্তির পথে বাধা হিসেবে বিবেচনা করে।

XS
SM
MD
LG