অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ফ্রান্সে পেনশন বিরোধী প্রতিবাদ: উত্তেজনা বেড়েছে পুলিশ ও বিক্ষোভকারীদের মধ্যে


ফ্রান্স সরকারের পেনসন সংস্কারের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ধর্মঘট এবং বিক্ষোভের নবম দিনে বিক্ষোভকারীদের সাথে সংঘর্ষের সময় সিআরএস দাঙ্গা পুলিশ দৌড়াচ্ছে; (ফাইল ছবি), ২৩ মার্চ ২০২৩।
ফ্রান্স সরকারের পেনসন সংস্কারের বিরুদ্ধে দেশব্যাপী ধর্মঘট এবং বিক্ষোভের নবম দিনে বিক্ষোভকারীদের সাথে সংঘর্ষের সময় সিআরএস দাঙ্গা পুলিশ দৌড়াচ্ছে; (ফাইল ছবি), ২৩ মার্চ ২০২৩।

ফ্রান্সের কর্তৃপক্ষ পুলিশকে রক্ষক হিসেবেই দেখছে। কেননা, প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রোর বিতর্কিত অবসরের বয়স বৃদ্ধির পরিকল্পনার বিরুদ্ধে নাগরিকদের শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ নিশ্চিত করছে তারা। তাবে, মানবাধিকার কর্মী এবং বিক্ষোভকারী, যাদের প্রতি কাঁদানে গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়েছে, এবং লাঠিপেটা করা হয়েছে, তাদের কাছে অফিসাররা সীমা লঙ্ঘন করেছেন বলে মানে হচ্ছে।

এই বিক্ষোভ শুরু হয়েছে জানুয়ারিতে। গত মাসে কোন ভোট ছাড়াই সংসদের নিম্নকক্ষের মাধ্যমে অবসরের বয়স বাড়ানোর জন্য একটি বিল পাস করাতে ম্যাঁক্রো উদ্যোগ নিলে, এই বিক্ষোভ তীব্রতর হয়। আর, খারাপ প্রচারে আতংকিত কর্তৃপক্ষ, নিরাপত্তা বাহিনীর জন্য প্রনোদনার প্রস্তাব দিয়ে ক্ষতি নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করছে।

পুলিশের বর্বরতা নিয়ে উদ্বেগ ছড়িয়ে পড়েছে ফ্রান্সের বাইরেও। প্রধানত শান্তিপূর্ণ প্রতিবাদ বিক্ষোভের সময়, পুলিশ অত্যাধিক সহিংস আচরণ করেছে বলে উল্লেখ করেছে বেশ কিছু সংস্থা। এর মধ্যে রয়েছে; অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ হিউম্যান রাইটস এবং ইউরোপের প্রধান মানবাধিকার সংস্থা কাউন্সিল অফ ইউরোপ।

অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল ফ্রান্সের প্রধান জিন ক্লঁদ স্যামুইলার গত সপ্তাহে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “ফ্রান্সের উচিত তাদের পুলিশ পরিষেবার কৌশল উন্নত করা।” তিনি বলেন, “জার্মানি, বেলজিয়াম এবং সুইডেন উত্তেজনা হ্রাস ও সংলাপের নীতি অনুসরণ করে। ফ্রান্সও তেমন কিছু করতে পারে।”

অন্যান্য ইউরোপীয় দেশের সাথে তুলনা করে, স্যামুইলার বলেন, “সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ফ্রান্সে দুজন বিক্ষোভকারীর মৃত্যু, দেশটিকে ক্লাসের খারাপ ছাত্রদের মধ্যে সকলের নিচে নামিয়ে দিয়েছে”।

XS
SM
MD
LG