অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাওয়ে ধর্ষিতা নাবালিকার বাড়িতে আগুন দিল জামিনে মুক্ত অভিযুক্তরা


ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাওয়ে ধর্ষিতা নাবালিকার বাড়িতে আগুন দিল জামিনে মুক্ত অভিযুক্তরা। (প্রতীকী ছবি)
ভারতের উত্তর প্রদেশের উন্নাওয়ে ধর্ষিতা নাবালিকার বাড়িতে আগুন দিল জামিনে মুক্ত অভিযুক্তরা। (প্রতীকী ছবি)

ফের সংবাদ শিরোনামে ভারতের উত্তর প্রদেশ রাজ্যের উন্নাও। ২০২২-এ ১৪ বছর বয়সী এক নাবালিকাকে ধর্ষণের অভিযোগে সারা দেশে তোলপাড় পড়ে গিয়েছিল। সেই নির্যাতিতা এক সন্তানের জন্ম দেন গত বছর সেপ্টেম্বর মাসে। ঘটনার পরে অভিযুক্তদের পাকড়াও করে জেলে পাঠায় পুলিশ। তবে সম্প্রতি জামিনে মুক্তি পেয়েই নির্যাতিতার বাড়িতে চড়াও হল অভিযুক্তরা। আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয় নির্যাতিতার বাড়িতে। এই ঘটনায় গুরুতর আহত নির্যাতিতার ছ’মাসের ছেলে আর দু’মাসের বোন।

এর আগেও এই ধরনের ঘটনার সাক্ষী থেকেছে যোগী আদিত্যনাথের শহর। ২০১৭ সালে এক নাবালিকাকে গণধর্ষণ করে একদল ব্যক্তি। মামলা দায়ের হলে নিপীড়িতার পরিবারকে হুমকি এবং খুনের চেষ্টাও করে অভিযুক্তরা। সোমবারের ভয়াবহ ঘটনায় গোটা এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এই অগ্নিকাণ্ড যেন উস্কে দিচ্ছে সেই ২০১৭-র স্মৃতি।

নিপীড়িতার পরিবার সর্বভারতীয় সংবাদ সংস্থাকে জানিয়েছেন, দু’জন অভিযুক্ত সদলবলে সোমবার রাতে জোর করে তাদের বাড়িতে ঢুকে পড়ে। তারপর ওই নাবালিকার মাকে মারধর করে বাডিতে আগুন লাগিয়ে দেয়। অভিযোগ, মেয়েটি মামলা তুলে নিতে রাজি না হওয়ায় তার বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। অবশ্য নিপীড়িতার মায়ের বক্তব্য, অভিযুক্তরা আসলে পুড়িয়ে মারতে চেয়েছিল নাবালিকার ছেলেকে। কারণ ধর্ষণের ফলে নাবালিকা গর্ভাবতী হয়ে পড়ায় ওই বাচ্চার জন্ম হয়েছিল। প্রমাণ লোপাটের জন্যই এই কাণ্ড ঘটিয়েছে।

এর আগেও মামলা প্রত্যাহার না করার সিদ্ধান্তে অনড় থাকায় ওই পরিবারের উপর নানা অত্যাচার চলেছে। এবছরের ১৩ এপ্রিল মেয়েটির বাবা প্রাণঘাতী হামলার শিকার হন।

চিফ মেডিকেল সুপারিন্টেন্ডেন্ট সুশীল শ্রীবাস্তবের কথায়, নাবালিকার বাচ্চা ছেলেটির শরীরের ৩৫ শতাংশ এবং বোনের শরীরের ৪৫ শতাংশ পুড়ে গেছে। তাদের দু’জনকেই কানপুরে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়েছে। কানপুরের এক হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে আহতদের।

XS
SM
MD
LG