অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

শহীদ মিনারে পঙ্কজ ভট্টাচার্যের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা নিবেদন


শহীদ মিনারে পঙ্কজ ভট্টাচার্যের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন সর্বস্তরের মানুষ।
শহীদ মিনারে পঙ্কজ ভট্টাচার্যের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন সর্বস্তরের মানুষ।

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক, প্রবীণ রাজনীতিবিদ পঙ্কজ ভট্টাচার্যের প্রতি মঙ্গলবার (২৫ এপ্রিল) বিকাল ৫টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শেষ শ্রদ্ধা জানিয়েছে সর্বস্তরের মানুষ। বিকাল ৪টার দিকে তার মরদেহ কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নিয়ে যাওয়া হয়।

প্রয়াত পঙ্কজ ভট্টাচার্যের প্রতি শ্রদ্ধা জানান বিভিন্ন জেলার সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, কর্মীসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশার মানুষ। বিশিষ্ট ব্যক্তিদের মধ্যে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ, সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, রাজনীতিবিদ ড. কামাল হোসেন, রাশেদ খান মেনন, জুনায়েদ সাকী, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। এছাড়া শতাধিক সংগঠনের নেতারা তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আসেন।

তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, “পঙ্কজ ভট্টাচার্য ছিলেন দেশের দরিদ্র ও বঞ্চিত মানুষের নেতা। তার রাজনীতির কেন্দ্রে ছিলো জনগণ, বিশেষ করে দরিদ্র মানুষের কল্যাণ। তিনি যদি রাজনীতি থেকে অর্থ উপার্জন করতে চাইতেন, তা সহজে করতে পারতেন এবং তাকে ভালো পদ দেয়া হতো।” তিনি আরো বলেন, “এই প্রজন্ম থেকে যারা রাজনীতি করতে চায়, তারা তার আদর্শ অনুসরণ করবে, কারণ তিনি একজন রাজনীতিবিদ হিসেবে ভালো উদাহরণ।”

পুষ্পস্তবক অর্পণের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আখতারুজ্জামান বলেন, “পঙ্কজ ভট্টাচার্য একজন গণমানুষের নেতা ছিলেন, যিনি জনগণের জন্য জীবন উৎসর্গ করেছিলেন। তার কিছু অসাধারণ মূল্যবোধ ছিলো, যা দরিদ্র মানুষকে আকৃষ্ট করেছে। এই কারণে তিনি নিজেই একটি সংগঠনে পরিণত হয়েছেন।”

তিনি আরো বলেন, “বাংলাদেশের রাজনৈতিক ক্ষেত্রে তার অবদান অবিস্মরণীয়। তিনি গণতান্ত্রিক মূল্যবোধকে শক্তিশালী করেছেন এবং জনগণ ও রাজনৈতিক সংগঠনের মধ্যে বন্ধুত্বের বন্ধনকে দৃঢ় করেছেন। তার মৃত্যু, নিঃসন্দেহে বাংলাদেশের রাজনৈতিক অঙ্গনের এক অপূরণীয় ক্ষতি।”

XS
SM
MD
LG