অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পরিচয়পত্র পেশ করলেন বাহামাস-এ নিযুক্ত প্রথম বাংলাদেশি হাইকমিশনার


কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার ড. খলিলুর রহমান ও বাহামাস-এর গভর্নর জেনারেল স্যার কর্নেলিয়াস অ্যালভিন স্মিথ
কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার ড. খলিলুর রহমান ও বাহামাস-এর গভর্নর জেনারেল স্যার কর্নেলিয়াস অ্যালভিন স্মিথ

কানাডায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার ড. খলিলুর রহমান অনাবাসিক হাইকমিশনার হিসেবে বাহামাস-এর রাজধানী নাসাউ-এ, দেশটির গভর্নর জেনারেল স্যার কর্নেলিয়াস অ্যালভিন স্মিথ-এর কাছে বৃহস্পতিবার (১৮ মে) তার পরিচয়পত্র পেশ করেন।

পরিচয়পত্র প্রদানের আনুষ্ঠানিকতা শেষে, বাহামাস-এর গভর্নর জেনারেল ও বাংলাদেশের নবনিযুক্ত হাইকমিশনার দুই দেশের পারস্পরিক স্বার্থ-সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

এ সময় দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পার্মানেন্ট সেক্রেটারি, মহাপরিচালক ও গভর্নর জেনারেলের কার্যালয়ের সচিব উপস্থিত ছিলেন।

বাহামাস-এর গভর্নর জেনারেল, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার কর্তৃক প্রণীত রূপকল্প ২০৪১ সহ অন্যান্য জাতীয় উন্নয়ন পরিকল্পনার প্রশংসা করেন। গভর্নর জেনারেল জাতিসংঘ মানবাধিকার কাউন্সিলসহ অন্যান্য বহুপক্ষীয় প্ল্যাটফর্মে পরস্পরকে সমর্থন করার ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এবং বাহামাস-এর দৃষ্টান্তমূলক সহযোগিতার কথা তুলে ধরেন।

গভর্নর জেনারেল আগামী আগস্ট ২০২৩-এ নাসাউ-এ অনুষ্ঠেয় কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর ওমেন মিনিস্টেরিয়াল বৈঠকে বাংলাদেশ থেকে একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি প্রেরণের জন্য অনুরোধ করেন। এছাড়া, তিনি, আগামী ১০ জুলাই বাহামাস-এর স্বাধীনতার ৫০তম বার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে হাইকমিশনারকে আমন্ত্রণ জানান।

গভর্নর জেনারেলের বক্তব্যের জবাবে বাংলাদেশের হাইকমিশনার বলেন, বাহামাস-এর সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় সম্পর্ক জোরদার ও সম্প্রসারণে, বাংলাদেশ সরকার তাকে প্রথম হাইকমিশনার হিসেবে দেশটিতে নিয়োগ দিয়েছে; বিশেষ করে, তিনি আর্থিক পরিষেবা ও পর্যটনের ক্ষেত্রে সহযোগিতার অপার সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন।

পরিচয়পত্র পেশ করার পর, হাইকমিশনার ড. খলিলুর রহমান বাহামাস-এর প্রধানমন্ত্রী এইচ. ই. ফিলিপ এডওয়ার্ড ডেভিস এবং উপ-প্রধানমন্ত্রী এইচ. ই. চেস্টার কুপার-এর সঙ্গে পারস্পরিক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে পৃথক দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন। বাহামাস-এর প্রধানমন্ত্রী জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক বৈশ্বিক প্রক্রিয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

নবনিযুক্ত হাইকমিশনার জাতিসংঘ জলবায়ু পরিবর্তন প্রক্রিয়ার পাশাপাশি কমনওয়েলথ ফোরামে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় অন্যান্য ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোকে নিয়ে একসঙ্গে কাজ করার প্রস্তাব দেন। উভয়পক্ষ প্যারিস চুক্তি অনুযায়ী, উন্নত দেশগুলোর দ্বারা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ জলবায়ু অর্থায়ন নিশ্চিত ও শারম আল শেখ-এ অনুষ্ঠিত কপ-২৭ সম্মেলনে ঘোষিত, লোকসান ও ক্ষতি তহবিল দ্রুত চালু করতে, অন্যান্য জলবায়ু ঝুঁকিপূর্ণ দেশের সঙ্গে একসঙ্গে কাজ করার জন্য অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

হাইকমিশনার জাতিসংঘসহ অন্যান্য আন্তর্জাতিক ফোরামে বাংলাদেশে আশ্রিত ১৩ লাখ জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমারের নাগরিকদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তনের জন্য বাহামাস-এর সমর্থন কামনা করেন।

হাইকমিশনার পারস্পরিক সহযোগিতার ক্ষেত্রগুলো অন্বেষণ এবং চিহ্নিত করার পাশাপাশি বাণিজ্য ও আর্থিক খাতে সহযোগিতা বৃদ্ধির জন্য দুই দেশের পররাষ্ট্র দপ্তরের মধ্যে একটি সমঝোতা স্মারকের খসড়া বাহামাস-এর প্রধানমন্ত্রীর কাছে হস্তান্তর করেন।

এছাড়া, হাইকমিশনার, আগামী জুলাইয়ে অনুষ্ঠিতব্য আন্তর্জাতিক মেরিটাইম সংস্থার কাউন্সিল নির্বাচনে মহাসচিব পদে বাংলাদেশের প্রার্থীর পক্ষে ভোট দিতে বাহামাস-কে অনুরোধ করেন।

বাহামাস-এর প্রধানমন্ত্রী বাংলাদেশকে সমর্থন দেয়ার বিষয়টি গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হবে বলে হাইকমিশনারকে আশ্বস্ত করেন। বাহামাস-এর প্রধানমন্ত্রী একই সঙ্গে দেশটির অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন।

XS
SM
MD
LG