অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

ঘূর্ণিঝড় মোকার পর বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য উন্নত মানসিক স্বাস্থ্য সহায়তার আহ্বান


বাংলাদেশের কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশুরা ঘূর্ণিঝড় মোকার পরে তাদের আশ্রয়কেন্দ্রের ধ্বংসাবশেষের মধ্যে একটি অস্থায়ী খেলার মাঠ তৈরি করে। (মোঃ জামাল/ ভয়েস অফ আমেরিকা)
বাংলাদেশের কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থী শিশুরা ঘূর্ণিঝড় মোকার পরে তাদের আশ্রয়কেন্দ্রের ধ্বংসাবশেষের মধ্যে একটি অস্থায়ী খেলার মাঠ তৈরি করে। (মোঃ জামাল/ ভয়েস অফ আমেরিকা)

এক শীতল সন্ধ্যায় মাগরিবের নামাজ শেষ করার পর একজন নারী তার বাচ্চাদেকে তার ওড়না দিয়ে উষ্ণ রাখতে তাদেরকে কাছে ধরে রেখেছেন ।তারা বাঁশের লাঠি এবং প্লাস্টিকের চাদর দিয়ে তৈরি একটি জরাজীর্ণ আশ্রয়ের বাইরে একসাথে বসে আছে- এটিই তাদের বাড়ি। সন্তানদেরকে আড়াল করে মা অশ্রু বিসর্জন করছেন।

বিধবা কনসোমা খাতুন (২৮) বাংলাদেশের কক্সবাজারে লক্ষাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থী যারা মে মাসে বাংলাদেশ এবং মিয়ানমারের কিছু অংশে আঘাত হানা ঘূর্ণিঝড় মোকা দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তাদের মধ্যে একজন।

জাতিসংঘের কর্মকর্তাদের মতে, গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ঘূর্ণিঝড়ের কারণে সৃষ্ট বন্যা ও ভূমিধস কক্সবাজার ক্যাম্পে বসবাসকারী প্রায় ৪০ হাজার শরণার্থীর আশ্রয়কে ধ্বংস বা ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।

ক্ষয়ক্ষতি শুধুমাত্র শারীরিক ছিল না।

কনসোমা ফোনে এবং ভিডিও সাক্ষাৎকারে ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছেন, “ঘূর্ণিঝড়ে আমার শারীরিক ক্ষতি করেনি এবং আমাদের আশ্রয়কেন্দ্রটি শুধু আংশিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। কিন্তু অন্য কিছু মনে হচ্ছে আমাকে দখল করে রেখেছে। আমি কেবল সরতে মনোবল পাচ্ছি না।”

যদিও তাদের অধিকাংশই এর আনুষ্ঠানিক পরিভাষা সম্পর্কে অবগত নন, তবে ২০২০ সালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ভিত্তিক মানবাধিকার সংস্থা ফোর্টিফাই রাইটসের প্রকাশিত একটি সমীক্ষা অনুসারে, বাংলাদেশের রোহিঙ্গা সম্প্রদায় একটি “গুরুতর মানসিক স্বাস্থ্য সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে।”

ফোর্টিফাই রাইটসের পরিচালক জন কুইনলি III ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেছেন, ঘূর্ণিঝড় মোকা রোহিঙ্গাদের মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে এমন অনেক সমস্যার মধ্যে একটি মাত্র।

XS
SM
MD
LG