অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জনজাতির সংঘর্ষে বিধ্বস্ত মণিপুরে দ্রুত শান্তি ফেরানোই লক্ষ্য জানালেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী


জনজাতির সংঘর্ষে বিধ্বস্ত মণিপুরে দ্রুত শান্তি ফেরানোই লক্ষ্য জানালেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
জনজাতির সংঘর্ষে বিধ্বস্ত মণিপুরে দ্রুত শান্তি ফেরানোই লক্ষ্য জানালেন ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

গত প্রায় একমাস ধরে দুই বিবদমান জনজাতির সংঘির্ষে অগ্নিগর্ভ অবস্থা ভারতের উত্তর-পূর্বের রাজ্য মণিপুরের। এই সময়কালে সে রাজ্যের বহু বাসিন্দা ভয়াবহভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। কার্ফু জারি রয়েছে একাধিক শহরে। বর্তমানে সেই রাজ্যেই শান্তি ফেরাতে জরুরি বৈঠক করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ । এইমুহূর্তে ৩ দিনের মণিপুর সফরে গিয়েছেন তিনি। মঙ্গলবার ৩০ মে সেখানেই গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক করেন রাজ্য সরকারের সঙ্গে।

সেখানে অমিত শাহ বলেছেন, এখন সরকারের প্রধান লক্ষ্য যে কোনও মূল্যে মণিপুরে ক্ষোভের আগুন নিভিয়ে শান্তি ফেরানো। প্রশাসন সেটাকেই অগ্রাধিকার দিচ্ছে। এছাড়া মণিপুরে শান্তি ও সমৃদ্ধি ফেরাতে এবং রাজ্যে শান্তি বিঘ্নিত করে এমন কোনও কার্যকলাপ কঠোরভাবে মোকাবিলা করতে নির্দেশ দিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

এর পাশাপাশি মণিপুর হিংসায় নিহতদের পরিবারকেও ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন অমিত শাহ। কেন্দ্র ও রাজ্য যৌথভাবে এই ক্ষতিপূরণ দেবে। জানা গিয়েছে, নিহতদের পরিবার পিছু ১০ লক্ষ টাকা করে দেওয়া হবে। এছাড়াও, পরিবারের একজনের চাকরির ব্যবস্থাও করা হবে। মুখ্যমন্ত্রী এন বীরেন সিং ও অমিত শাহের বৈঠকে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

অমিত শাহ মণিপুর পুলিশ, সিএপিএফ এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গেও একটি পর্যালোচনা বৈঠক করেছেন। এরপরই ক্ষতিপূরণের কথা ঘোষণা করেন তিনি। এছাড়াও সেই বৈঠকে পেট্রোল, এলপিজি গ্যাস, চাল এবং অন্যান্য খাদ্য পণ্যের জোগান যাতে যথেষ্ট পরিমাণে থাকে এবং দাম কমানো হয়, তা নিশ্চিত করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত, শাহের সফরের আগেই রবিবার নতুন করে হিংসা ছড়িয়েছিল মণিপুরের সেরাও ও সুগুনু এলাকায়। হিংসার জেরে এক পুলিশকর্মী-সহ মোট পাঁচজন প্রাণ হারান। আহত হন কমপক্ষে ১২ জন। অভিযোগ, দুষ্কৃতীরা আধুনিক আগ্নেয়াস্ত্র থেকে সেরাও ও সুগুনু এলাকায় একাধিক বাড়ি লক্ষ্য করে গোলাবর্ষণ করেছিল। তাতেই নতুন করে অগ্নিগর্ভ হয়ে যায় ওই এলাকাগুলো।

XS
SM
MD
LG