অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জাতীয় সংসদে বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্যদের আশঙ্কা—লোডশেডিংয়ের কারণে জনগণের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিতে পারে


বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের বিরোধী দলীয় সংসদ সদস্যরা আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন যে, লোডশেডিং যেভাবে বাড়ছে তাতে জনগণের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিতে পারে।

জবাবে বাংলাদেশের বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, তিনি ইতিমধ্যেই দুঃখ প্রকাশ করেছেন এবং সবাইকে আরও কয়েক সপ্তাহ ধৈর্য ধরতে অনুরোধ করেছেন।

মঙ্গলবার (৬ জুন) ২০২২-২০২৩ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেটে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের প্রস্তাবিত ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় চলমান লোডশেডিং পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়।

নসরুল হামিদ চলতি অর্থবছরের জন্য ৩২ কোটি ৪৬ লাখ টাকা বরাদ্দ চেয়েছেন। ১০ জন সংসদ সদস্য তাঁর দাবির ওপর ছাঁটাই প্রস্তাব উত্থাপন করেন। আলোচনায় অংশ নেন ৬ জন। বাকিরা অনুপস্থিত ছিলেন।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য শামীম হায়দার পাটোয়ারী বলেন, বর্তমানে প্রায় দেড় হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুতের লোডশেডিং হচ্ছে। এই লোডশেডিং আরও বাড়বে। বিল পরিশোধজনিত কারণে পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধ হয়েছে।

তিনি উল্লেখ করেন, মানুষ ইতিমধ্যে তাদের বিল পরিশোধ করেছে। তাহলে কেন এই বিল বাকি? বাকি টাকা ক্যাপাসিটি চার্জ হতে পারে বলে অভিযোগ করেন তিনি।

শামীম হায়দার পাটোয়ারী আরও বলেন, “গণমাধ্যমে দেখেছি ক্যাপাসিটি চার্জ বিল হচ্ছে ৯০ হাজার কোটি টাকা। যার ২০ হাজার কোটি টাকা এখনো বকেয়া রয়েছে। ক্যাপাসিটি চার্জ এত বেশি কেন? কেন চুক্তিটি এমনভাবে করা হলো যে, ক্যাপাসিটি চার্জ দিতে হবে? বিদ্যুৎ উৎপাদনের সঙ্গে খুঁটি ও সঞ্চালন লাইন সংযুক্ত নয় কেন?”

তিনি বলেন, বিএনপির সময় বিদ্যুৎ ছিল না, খুঁটি ছিল। এখন বিদ্যুৎ আছে, কিন্তু খুঁটি নেই।

জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য রওশন আরা মান্নান বলেছেন, দেশের জ্বালানি নিরাপত্তা ও বিদ্যুৎ বিভাগ হুমকির মুখে রয়েছে।

জাতীয় পার্টির আরেক সংসদ সদস্য কাজী ফিরোজ রশীদ বলেন, মানুষ বিদ্যুৎ পাচ্ছে না। বিদ্যুৎ না থাকলে দেশের অগ্রগতি থেমে যাবে। কৃষিতে উৎপাদন কমে যাবে। সর্বত্র স্থবিরতা বিরাজ করবে।

তিনি আরও বলেন, “আগে যদি কয়লা বা ডিজেল আমদানি করা যেত, তাহলে আজ এই সমস্যা হতো না। আমাদের মন্ত্রণালয়ের মধ্যে কোনো সমন্বয় নেই। আমাদের কয়লা আমদানি করতে হবে এবং যত তাড়াতাড়ি সম্ভব বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো চালু করতে হবে”।

রুস্তম আলী ফরাজী বলেন, বিদ্যুৎ চলে যাচ্ছে কিন্তু মন্ত্রীর কোনো বক্তব্য নেই। কেন? জনগণকে নিশ্চিত হতে হবে। বিষয়টি গণশুনানির মাধ্যমে জানাতে হবে। লোডশেডিং সম্পর্কিত তথ্য দিতে হবে।

আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বলেন, “কোভিড আমাদের অনেক ক্ষতি করেছে। পণ্যের দাম বেড়েছে”।

বর্তমান বিদ্যুৎ সংকটের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, বর্তমানে দেশে যেকোনো মুহূর্তে ২০ থেকে ২২ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ করা যেতে পারে।

নসরুল হামিদ আরও বলেন, “এর জন্য জ্বালানি প্রয়োজন। সারা বিশ্ব দুই-তিন বছর ধরে কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত ছিল। সব দেশই আক্রান্ত হয়েছে। এরপর আসল রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ। সারা বিশ্বে সবকিছুর দাম বেড়ে গেছে। গ্যাস ও তেল পাওয়া যাচ্ছিল না”।

তিনি বলেন, সরকার নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ ও জ্বালানি সরবরাহের জন্য আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। অনেক বড় চ্যালেঞ্জ আছে এবং থাকবেও। আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে সক্ষমতা। আমরা জ্বালানি ও বিদ্যুৎ কতটা সাশ্রয় করতে পারি! এটি ভবিষ্যতের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে। বিশ্ব বাজারে কখন কী ঘটবে তা ভবিষ্যদ্বাণী করা অসম্ভব। যেমন আমরা ক্রমাগত জ্বালানি পাব কি না!

নসরুল হামিদ বলেন, বর্তমানে আমরা দিনে ১২ হাজার থেকে ১২ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারি। পিক আওয়ারে সন্ধ্যায় আমরা ১৪ হাজার থেকে ১৫ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারি।

তিনি জানান, বর্তমানে ২ হাজার ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের লোডশেডিং চলছে। বর্তমান সংকটের প্রেক্ষাপট তুলে ধরে নসরুল হামিদ বলেন, “আমরা সময়মতো কয়লার জন্য এলসি (লেটার অব ক্রেডিট) করতে পারিনি। বৈশ্বিক ও অর্থনৈতিক ব্যবস্থার কথা মাথায় রেখে আমরা সময়মতো কয়লা আনতে পারিনি”।

XS
SM
MD
LG