অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

খালেদা জিয়ার অবস্থা এখন স্থিতিশীল—জানিয়েছেন তাঁর ব্যক্তিগত চিকিৎসক জাহিদ হোসেন


বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। (ফাইল ছবি)
বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। (ফাইল ছবি)

রাজধানী ঢাকার এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিরোধী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়ার অবস্থা স্থিতিশীল বলে জানিয়েছেন তাঁর ব্যক্তিগত চিকিৎসক ও দলটির ভাইস চেয়ারম্যান এ জেড এম জাহিদ হোসেন।

বুধবার (১৪ জুন) সাংবাদিকদের তিনি বলেন, “ম্যাডামের শারীরিক অবস্থা এখন স্থিতিশীল এবং যেদিন তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছিল তার তুলনায় কিছুটা উন্নতি হয়েছে”।

জাহিদ হোসেন জানান, অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে মেডিকেল বোর্ডের সদস্যরা বিএনপি চেয়ারপারসনের স্বাস্থ্য পরীক্ষার বিভিন্ন রিপোর্ট পর্যালোচনা করেন। “তারা পরীক্ষার রিপোর্ট এবং তাঁর শারীরিক অবস্থার ওপর ভিত্তি করে তাঁকে প্রয়োজনীয় চিকিৎসা দিচ্ছেন”।’

জাহিদ হোসেন বলেন, খালেদা জিয়ার পরবর্তী চিকিৎসার ধাপ নির্ধারণ করতে মেডিকেল বোর্ডের বৈঠকে বসার কথা রয়েছে।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনকে আরও কয়েক দিন হাসপাতালে থাকতে হতে পারে।

উল্লেখ্য, হঠাৎ জ্বর ও পেটব্যথায় অসুস্থ হয়ে পড়লে মঙ্গলবার (১৩ জুন) ভোরে তাঁকে রাজধানী ঢাকার বসুন্ধরা এলাকায় এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে মেডিকেল বোর্ডের নিবিড় তত্ত্বাবধানে তাঁর স্বাস্থ্যের বিভিন্ন পরীক্ষা করানো হয়।

৭৮ বছর বয়সী খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে লিভার সিরোসিস, আর্থ্রাইটিস, ডায়াবেটিস, কিডনি, ফুসফুস, হার্ট ও চোখের সমস্যাসহ বিভিন্ন রোগে ভুগছেন।

২০২০ সালে শর্তসাপেক্ষে তাঁর মুক্তির পর থেকে বিএনপি চেয়ারপারসন কার্ডিওলজিস্ট অধ্যাপক শাহাবুদ্দিন তালুকদারের নেতৃত্বে একটি মেডিকেল বোর্ডের অধীনে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের 8 ফেব্রুয়ারি নিম্ন আদালত খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের কারাদণ্ডে দণ্ডিত করলে তাঁকে পুরান ঢাকার কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠানো হয়।

পরে, একই বছর দুর্নীতির আরেকটি মামলায় তাঁকে দোষী সাব্যস্ত করা হয়।

করোনভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মধ্যে সরকার ২০২০ সালের ২৫ মার্চ খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে একটি নির্বাহী আদেশের মাধ্যমে তাঁকে সাময়িকভাবে কারাগার থেকে মুক্তি দেয় এই শর্তে যে, তিনি তাঁর গুলশানের বাড়িতে থাকবেন এবং দেশ ছেড়ে যাবেন না।

XS
SM
MD
LG