অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

রোহিঙ্গাদের ন্যায়বিচার প্রদানের প্রচেষ্টা ত্বরান্বিত করতে হবে: করিম খান


রোহিঙ্গাদের ন্যায়বিচারের প্রচেষ্টা ত্বরান্বিত করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) চিফ প্রসিকিউটর করিম খান।
রোহিঙ্গাদের ন্যায়বিচারের প্রচেষ্টা ত্বরান্বিত করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) চিফ প্রসিকিউটর করিম খান।

রোহিঙ্গাদের ন্যায়বিচারের প্রচেষ্টা ত্বরান্বিত করার ওপর গুরুত্ব আরোপ করেছেন আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) চিফ প্রসিকিউটর করিম খান। শুক্রবার (৭ জুলাই) বিকালে ঢাকায় এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, “প্রতিশ্রুতি ও ন্যায়বিচার প্রদানের মধ্যে ব্যবধান রয়েছে।”

চিফ প্রসিকিউটর করিম খান রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর কথিত গণহত্যা থেকে বেঁচে যাওয়া ব্যক্তিদের কাছ থেকে সাক্ষ্য নিতে কক্সবাজার পরিদর্শন করেছেন। এ ঘটনার জন্য কারা দায়ী, তা খুঁজে বের করতে, আগামী বছর আবার আসবেন বলে উল্লেখ করেন করিম খান। তিনি বলেন, “আমি রোহিঙ্গাদের প্রতিশ্রুতি দিয়েছি।”

কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শনকালে করিম খান রোহিঙ্গা যুব গোষ্ঠীর সঙ্গে আইসিসির কার্যক্রম নিয়ে আলোচনা করেন এবং তরুণরা কিভাবে ন্যায়বিচার প্রচেষ্টায় অবদান রাখতে পারে তা নিয়ে আলোচনা করেন। তিনি বলেন, “জবাবদিহিতার প্রক্রিয়ায় মূল্যবান অংশীদার হিসেবে শিশু ও তরুণ প্রাপ্তবয়স্কদের ক্ষমতায়ন অপরিহার্য।”

কুতুপালং ক্যাম্পে প্রথম বৈঠকে তিনি রোহিঙ্গা নারী গোষ্ঠীর সঙ্গে কথা বলেন।করিম খান রিপোর্টিং পদ্ধতিতে প্রবেশাধিকার বৃদ্ধি, আইসিসির কাজ সম্পর্কে বোঝাপড়া গভীর করা এবং স্বাধীন তদন্তের মাধ্যমে ফলাফল প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয় সাধারণ দৃষ্টিভঙ্গির কথা তুলে ধরেন।

মিয়ানমারের সহিংসতা থেকে পালিয়ে আসা ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর আবাসস্থল কক্সবাজার রোহিঙ্গা ক্যাম্প। প্রসিকিউটর খান তার সফরের উদ্দেশ্য এবং বেঁচে যাওয়া ব্যক্তি ও নিহতদের পরিবারের সঙ্গে তাদের চলমান কাজ ব্যাখ্যা করেন।

করিম খান বলেন, “বাংলাদেশ ন্যায়ের পতাকা ধরে রেখেছে।” রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ার উদারতায় বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

XS
SM
MD
LG