অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বিদেশিরা আসে-যায়, বিএনপির আশা পূরণ হয় না—আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের


ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ সরকারের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ সরকারের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

বিদেশিদের কাছে বিএনপির (বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল) আশা পূরণ হয়নি বলে মন্তব্য করেছেন ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও বাংলাদেশ সরকারের সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, “বিদেশিরা এসে চলে গেল, কিন্তু তাদের আশা পূরণ হয়নি। এখন সব দোষ শেখ হাসিনার। নির্বাচনে এলে হেরে যাবে, এ কথা ভাবতেই তাদের মন খারাপ”।

বুধবার (১৯ জুলাই) বিকেলে রাজধানী ঢাকার তেজগাঁওয়ের সাত রাস্তার মোড়ে আয়োজিত আওয়ামী লীগের শান্তি ও উন্নয়ন শোভাযাত্রায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নেতারা আশার মালা গেঁথে প্রহর গুনেছে, কখন আসবে উজরা জেয়া, ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা। বিএনপি নেতাদের চোখে–মুখে আনন্দের ধারা। ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিনিধিরা এল, এখন যায় যায়। আমেরিকান প্রতিনিধি এসে চলে গেল। বিএনপি যা শুনতে চেয়েছিল, তা পায়নি। তাদের চোখ-মুখ শুকিয়ে গলার পানিও শুকিয়ে গেছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, “আনন্দ নেই, শুকনো মুখ, শুখনো চোখ। কারণ বিএনপি নেতাদের আমেরিকা বলে দিয়েছে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রয়োজন নেই। আগামী জাতীয় নির্বাচন সংবিধান অনুযায়ী হবে। বিএনপিকে শেখ হাসিনার অধীনেই নির্বাচন করতে হবে। এটাই তাদের জ্বালা”।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সারা দেশে স্লোগান আর দফা একটাই- শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। সাত রাস্তায় এসে দেখুন জনতার ঢল আর জনতার বিপ্লব।

বিএনপি নেতাদের উদ্দেশে ওবায়দুল কাদের বলেন, মানসম্মান থাকতে আন্দোলন ছেড়ে নির্বাচনে আসুন। অন্যথায় মানসম্মান থাকবে না। তিনি বলেন, “বিএনপিকে পরিষ্কার বলতে চাই নির্বাচনে আসুন। নির্বাচনে না এলে সেটা আপনাদের বিষয়। কিন্তু নির্বাচনে বাধা দিতে এলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে আমরা প্রতিহত করব”।

বিএনপির ৫৪ দল, ৩৬ দল, ২৭ দফা, এক দফা ভুয়া উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, বাংলাদেশের জনগণ বিএনপির ভুয়া রাজনীতি চায় না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির অন্তরজ্বালা বেড়ে যাচ্ছে। এক দিনে শত সেতুর উদ্বোধন, আগামী মাসে আরও শত সেতুর উদ্বোধন হবে। এ ছাড়া পদ্মাসেতু, মেট্রোরেল, চট্টগ্রামে নদীর তলদেশে বঙ্গবন্ধু টানেল—এত উন্নয়ন কীভাবে ঠেকাবে? বিএনপির ঘুম নেই।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি এখন পায়ে পা রেখে ঝগড়া করতে চায়। আমরা শান্তি চাই। তিনি কর্মীদের মাথা গরম না করার নির্দেশ দিয়ে বলেন, যত শান্তি থাকবে, আওয়ামী লীগের ভোট তত বাড়বে। এক দিকে জনগণের শক্তি, অন্য দিকে সন্ত্রাস আর তাণ্ডব।

আওয়ামী লীগের ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি শেখ বজলুর রহমানের সভাপতিত্বে শান্তি ও উন্নয়ন সমাবেশে আরও বক্তব্য দেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, সাংগঠনিক সম্পাদক আফজাল হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল প্রমুখ।

সমাবেশে মাহবুব উল আলম হানিফ বিএনপিকে নির্বাচনে এসে নিজেদের জন সমর্থন প্রমাণ করার আহ্বান জানিয়ে বলেন, বিদেশিদের ক্রীড়নক হওয়ার চেষ্টা করবেন না।

জনগণ আর আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না, এখনই ক্ষমতা ছাড়ুন—বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল

সরকারের পদত্যাগের দাবিতে তাদের মিছিলকে অধিকার আদায়ের ‘বিজয় মিছিল’ আখ্যায়িত করে বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, এটি কেবল একটি মিছিল নয়, এটি বিজয়ের মিছিল। এটা জনগণের অধিকার আদায়ের বিজয় মিছিল। … জনগণ আর আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না, এখনই ক্ষমতা ছাড়ুন।

মঙ্গলবার (১৮ জুলাই) রাজধানী ঢাকার গাবতলী এলাকায় দলের পদযাত্রা শুরুর আগে বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপি সমাবেশ
বিএনপি সমাবেশ

মির্জা ফখরুল বলেন, “সারা দেশের মানুষ তাদের হারানো অধিকার ফিরে পেতে এবং আওয়ামী লীগ সরকারের দুঃশাসন থেকে মুক্তি পেতে জেগে উঠেছে। পদযাত্রার মধ্য দিয়ে আমাদের এক দফা দাবি আদায় করে আমরা বিজয় অর্জন করব। আমরা এই ভয়ঙ্কর দানবীয় সরকারকে পরাজিত করব এবং একটি সরকার ও জনগণের সংসদ গঠন করব”।

মির্জা ফখরুল বলেন, মিছিল কর্মসূচির মধ্য দিয়ে তারা আরও ৩৬টি বিরোধী দলের সঙ্গে গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারের নতুন যাত্রা শুরু করেছেন। তিনি আওয়ামী লীগকে ক্ষমতাচ্যুত করে দেশ ও জনগণকে রক্ষায় রাজপথে নেমে আসতে সকল গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল, সংগঠন ও পেশাজীবী সংগঠনের প্রতিও আহ্বান জানান।

XS
SM
MD
LG