অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশে আগস্টে খাদ্য মূল্যস্ফীতি হয়েছে ১২ দশমিক ৫৪ শতাংশ: বিবিএস


গত দুই মাসে মূল্যস্ফীতি সামান্য কমার পর, আগস্ট মাসে বাংলাদেশে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ঊর্ধমুখী হয়।
গত দুই মাসে মূল্যস্ফীতি সামান্য কমার পর, আগস্ট মাসে বাংলাদেশে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ঊর্ধমুখী হয়।

বাংলাদেশে চলতি বছরের আগস্টে সার্বিক মূল্যস্ফীতি বেড়েছে। আগস্টে সার্বিক মূল্যস্ফীতি দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ৯২ শতাংশে; আর, খাদ্য মূল্যস্ফীতি হয়েছে ১২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। রবিবার (১০ সেপ্টেম্বর) প্রকাশিত বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) সর্বশেষ মূল্যস্ফীতির তথ্য অনুযায়ী; গত দুই মাসে খাদ্য ও খাদ্য বহির্ভূত উভয় মূল্যস্ফীতি আগস্ট মাসে সর্বোচ্চ পর্যায়ে পৌঁছেছে।

গত দুই মাসে মূল্যস্ফীতি সামান্য কমার পর, আগস্ট মাসে বাংলাদেশে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ঊর্ধমুখী হয়। চলতি মাসে সামগ্রিকভাবে খাদ্য মূল্যের স্ফীতি হয়েছে ১২ দশমিক ৫৪ শতাংশ। জুলাইয়ে তা ছিলো ৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ।

জুলাই মাসে সামগ্রিক খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ৪৭ শতাংশ হলেও, আগস্ট-এ তা ৭ দশমিক ৯৫ শতাংশে নেমে আসে। গ্রামাঅঞ্চলে সামগ্রিক মূল্যস্ফীতি আগস্টে বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯ দশমিক ৯৮ শতাংশে। এর মধ্যে খাদ্য মূল্যস্ফীতি হয়েছে ১২ দশমিক ৭১ শতাংশ; খাদ্যবহির্ভূত মূল্যস্ফীতি হয়েছে ৭ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

আগস্টে মূল্যস্ফীতি ৯ দশমিক ৯২ শতাংশ-এর অর্থ হলো; কোনো ব্যক্তি ২০২২ সালের আগস্ট মাসে ১০০ টাকায় যে পণ্য ও পরিষেবা কিনতেন; চলতি বছরের আগস্টে একই পণ্য কিনতে তাকে খরচ করতে হয়েছে ১০৯ দশমিক ৯২ টাকা।

বিবিএস এর হালনাগাদ তথ্য অনুযায়ী, গ্রাম অঞ্চলের খাদ্য মূল্যের স্ফীতি আগস্ট-এ ছিলো ১২ দশমিক ৭১ শতাংশ। আর শহরাঞ্চলে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ছিলো ১২ দশমিক ১১ শতাংশ। উভয় ক্ষেত্রেই জুলাই মাসে খাদ্য মূল্যস্ফীতি ছিলো ১০ শতাংশের নিচে।

XS
SM
MD
LG