অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বুধবার থেকে আবার ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা বিএনপির


বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। প্রতীকী ছবি।
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি)। প্রতীকী ছবি।

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপিসহ সমমনা বিরোধী দলগুলো এক দফা দাবি আদায়ের লক্ষ্যে, বুধবার (৮ নভেম্বর) সকাল ৬টা থেকে আবার দেশব্যাপী ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচি পালন করবে। মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান।

তিনি বলেন, “এই কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালন করা হবে। আমাদের অবরোধ কর্মসূচি জনগণের দাবির ওপর ভিত্তি করে। এটা শুধু বিএনপির কর্মসূচি নয়। যারা দেশের মালিকানা থেকে বঞ্চিত হয়েছেন, তাদের সবার কর্মসূচি এটি।”

অতীতের মতো সব বাধা উপেক্ষা করে রাজপথে অবস্থান নিয়ে, অবরোধ কর্মসূচি সফল করতে, বিএনপি ও সমমনা দলগুলোর নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান তিনি। রিজভী বলেন, “জনগণকে সঙ্গে নিয়ে সড়ক অবরোধ করুন, মহাসড়ক অবরোধ করুন এবং শান্তিপূর্ণ থাকুন। কিন্তু তারা (সরকার) আমাদের বিরুদ্ধে নাশকতার বিভিন্ন মহাপরিকল্পনা করছে। আমরা রাজপথে থাকবো এবং সরকারের অশুভ চক্রান্ত প্রতিহত করবো।”

চলমান আন্দোলনের মাধ্যমে; গণতন্ত্র, মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও ভোটাধিকার ফিরে পেতে; দেশের লাখ লাখ মানুষ বিরোধী দলের অবরোধ কর্মসূচিতে সমর্থন দিচ্ছে বলেও দাবি করেন রুহুল কবির রিজভী।

আন্দোলন দমনে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা আবার বিরোধী দলীয় নেতা-কর্মীদের গুম করতে শুরু করেছে বলে অভিযোগ করেন তিনি। বলেন, “তিতুমীর কলেজ শাখা ছাত্রদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহমুদুল হাসান রফিক ও সাইফুল ইসলামকে ডিবি পুলিশ তুলে নিয়ে গেছে। এর পর থেকে তাদের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। আমাদের নেতা-কর্মীদের গুম করা নতুন করে শুরু হয়েছে।”


বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, “ভোটারদের অংশগ্রহণ ছাড়া আরেকটি একতরফা নির্বাচন করতে সরকার মরিয়া হয়ে উঠেছে। তাই, জনগণকে ভয় দেখানোর জন্য তারা (সরকার) গুমের নতুন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী এবার তরুণদের গুম করার জন্য টার্গেট করছে; যেহেতু তরুণরা অগ্রগামী হিসেবে রাজপথে আন্দোলন করছে।”

অবিলম্বে এফ মাহমুদুল ও সাইফুল ইসলামকে তাদের পরিবারের কাছে নিরাপদে ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানান রিজভী। তিনি জানান, “মঙ্গলবার (৭ নভেম্বর) বিকাল ৫টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায়, সারাদেশে বিএনপির ৪৯৬ জন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।”

XS
SM
MD
LG