অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

জিম্মিদের মুক্তি দেবে হামাস, যুদ্ধবিরতি করবে ইসরাইল


গাজায় হামাসের হাতে আটক প্রায় ২৪০ জন জিম্মির পরিবার ও বন্ধুরা ইসরাইলের তেল আবিবে এক বিক্ষোভের সময় তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য ইসরাইলের প্রতি আহ্বান জানায়।( ২১ নভেম্বর, ২০২৩)
গাজায় হামাসের হাতে আটক প্রায় ২৪০ জন জিম্মির পরিবার ও বন্ধুরা ইসরাইলের তেল আবিবে এক বিক্ষোভের সময় তাদের দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য ইসরাইলের প্রতি আহ্বান জানায়।( ২১ নভেম্বর, ২০২৩)

গত মাসে ইসরাইলের ওপর হামাসের হামলার পর গাজা ভূখণ্ডে হামাসের হাতে আটক কয়েকজন জিম্মিকে বৃহস্পতিবারের মধ্যে মুক্তি দেওয়া হতে পারে। এর আগে কাতারের ঘোষিত একটি চুক্তিতে বলা হয় ইসরাইলি বাহিনী চার দিনের জন্য গাজায় তাদের হামলা বন্ধ রাখবে।

কাতার বলেছে, হামাস ৫০ জন নারী ও শিশুকে মুক্তি দেবে এবং ইসরাইল “ইসরাইলি কারাগারে আটক কয়েকজন ফিলিস্তিনি নারী ও শিশুকে” মুক্তি দেবে।

যুক্তরাষ্ট্র প্রশাসনের এক সিনিয়র কর্মকর্তা রয়টার্সকে জানান, কাতার, যুক্তরাষ্ট্র ও মিশরের নেতৃত্বে কয়েক সপ্তাহ ধরে আলোচনার পর বুধবার সকালে এই চুক্তির ঘোষণা আসে। হামাসের কাছ থেকে মুক্তিপ্রাপ্ত জিম্মিদের মধ্যে কয়েকজন আমেরিকান থাকার সম্ভাবনা আছে বলেও জানান তিনি।

এক বিবৃতিতে যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেন, “এই চুক্তিতে পৌঁছানোর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ নেতৃত্ব ও অংশীদারিত্বের জন্য আমি কাতারের শেখ তামিম বিন হামাদ আল-থানি এবং মিশরের প্রেসিডেন্ট আবদেল-ফাত্তাহ আল-সিসিকে ধন্যবাদ জানাই।” সেই সাথে তিনি প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু এবং তার সরকারের যুদ্ধবিরতি এবং গাজার নিরাপরাধ ফিলিস্তিনি মানুষের কাছে মানবিক সাহায্য নিশ্চিৎ করার প্রতিশ্রুতির প্রশংসা করেন।

গত ৭ অক্টোবর হামাস যোদ্ধারা ইসরাইলের দক্ষিণাঞ্চলে প্রবেশের পর পালটা সামরিক অভিযান শুরু করে ইসরাইল। ইসরাইল জানায়, সন্ত্রাসী হামলায় ১,২০০ জন নিহত এবং প্রায় ২৪০ জনকে জিম্মি করা হয়। গাজার স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, গাজা ভূখন্ডে ইসরাইলের সামরিক অভিযানে অন্তত পাঁচ হাজার শিশুসহ ১২ হাজারেরও বেশি ফিলিস্তিনি নিহত হয়েছেন।

ইসরাইলি প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু জিম্মিদের সবাইকে ফিরিয়ে আনার অঙ্গীকার করেছেন। তিনি মন্ত্রিসভার সদস্যদের কাছে পুনর্ব্যক্ত করেছেন, ইসরাইলের লক্ষ্য হামাসকে নির্মূল করা এবং জঙ্গি গোষ্ঠীটি যাতে ইসরাইলকে আর হুমকি দিতে না পারে তা নিশ্চিত করা।

কাতার বলেছে, ইসরাইলের যুদ্ধ বিরতির ফলে গাজায় মানবিক প্রচেষ্টায় জ্বালানিসহ আরও মানবিক সাহায্য আনা যাবে।

ইউরোপীয় ইউনিয়নের পররাষ্ট্রনীতি বিষয়ক প্রধান জোসেফ বোরেল এই চুক্তিকে স্বাগত জানিয়েছেন এবং হামাসের হাতে আটক সব জিম্মিকে মুক্তি দেয়ার আহ্বান জানিয়েছেন।

ফরাসি পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্যাথরিন কোলোনাও এই চুক্তিকে স্বাগত জানিয়ে ফ্রান্স ইন্টার রেডিওকে বলেছেন, ফ্রান্স আশা করছে, মুক্তি প্রাপ্তদের মধ্যে ফরাসি নাগরিকও রয়েছেন।

রাশিয়ায় ক্রেমলিনের মুখপাত্র দমিত্রি পেসকভ এই চুক্তিকে সংঘাতের দীর্ঘ সময়ের মধ্যে "প্রথম সুসংবাদ" বলে অভিহিত করেছেন।

ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন এই চুক্তিকে “জিম্মিদের পরিবারকে ত্রাণ প্রদান এবং গাজায় মানবিক সংকট মোকাবেলায় একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ” বলে অভিহিত করেছেন।

এই প্রতিবেদনের জন্য কিছু তথ্য এসেছে এপি ও রয়টার্স থেকে।

XS
SM
MD
LG