অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

আন্দামান সাগরে দুর্ঘটনা কবলিত রোহিঙ্গাদের উদ্ধারে আঞ্চলিক উদ্যোগের আহ্বান ইউএনএইচসিআরের


জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর।
জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর।

আন্দামান সাগরের, শত শত রোহিঙ্গা নিয়ে দুর্ঘটনাকবলিত নৌযানগুলো উদ্ধারের জন্য আঞ্চলিক উদ্যোগের আহবান জানিয়েছে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা ইউএনএইচসিআর। শনিবার (২ ডিসেম্বর) দ্রুত অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান চালাতে, সব দেশ, বিশেষ করে আন্দামান সাগরের আশেপাশের দেশগুলোর প্রতি আহবান জানিয়েছে এই জাতিসংঘ সংস্থা।

এই বিপজ্জনক সামুদ্রিক যাত্রা মোকাবেলা করতে, ব্যাপক আঞ্চলিক পদক্ষেপের আহ্বান পুনর্ব্যক্ত করেছে ইউএনএইচসিআর। ২০২২ সাল থেকে এ পর্যন্ত, রোহিঙ্গা শরণার্থী-সহ ৫৭০ জনের বেশি মানুষ সমুদ্রে মৃত বা নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।

জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা সতর্ক করে বলেছে, উপকূলীয় দেশগুলো সময়মতো উদ্ধার অভিযান না চালালে এবং দুর্ঘটনা কবলিতদের নিরাপদ স্থানে না আনলে অনেকের মৃত্যু হতে পারে। বিভিন্ন উৎস থেকে পাওয়া তথ্যে ইউএনএইচসিআর জানতে পেরেছে যে যাত্রীবাহী দুটি নৌকার ইঞ্জিন নষ্ট হয়ে গেছে এবং বর্তমানে আন্দামান সাগরে ভেসে বেড়াচ্ছে। এছাড়ার আগামী দিনে এই এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা রয়েছে।

শনিবার জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা জানিয়েছে, দুটি নৌকায় প্রায় ৪০০ জন যাত্রী আছে। এছাড়া, ১৫০ জন রোহিঙ্গা নিয়ে আরেকটি নৌকা শনিবার ভোরে আচেহের উত্তরে একটি দ্বীপ সাবাং-এ পৌঁছেছে বলে জানা গেছে।দুর্ঘটরাবকলিতদের খাবার ও পানি ফুরিয়ে যেতে পারে বলে ইউএনএইচসিআর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। আশঙ্কা প্রকাশ করেছে, দুর্ঘটনা কবলিতদের উদ্ধার না করা হলে, বিপুল সংখ্যক মানুষের প্রাণহানি ঘটতে পারে।

ইউএনএইচসিআর বলেছে, সমুদ্র আইনের অধীনে আন্তর্জাতিক দায়বদ্ধতা বজায় রাখতে হবে এবং জাতীয়তা বা আইনি অবস্থা নির্বিশেষে, সমুদ্রে দুর্ঘটনাকবলিতদের উদ্ধার করার দায়িত্ব অবশ্যই পালন করতে হবে।ইউএনএইচসিআর এবং এর অংশীদাররা দুর্ঘটনাকবলিতদের জন্য প্রয়োজনীয় মানবিক সহায়তা দিতে প্রস্তুত বলেও জানিয়েছে সংস্থাটি।

XS
SM
MD
LG