অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

এফবিসিসিআই: ‘অসহিষ্ণু রাজনৈতিক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকুন’


বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত এফবিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভা। ঢাকা, ৯ ডিসেম্বর, ২০২৩।
বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত এফবিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভা। ঢাকা, ৯ ডিসেম্বর, ২০২৩।

দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিতে ব্যবসায়ী সম্প্রদায়কে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়েছেন দি ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার্স অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (এফবিসিসিআই) সভাপতি মাহবুবুল আলম।

এছাড়া, ব্যবসা-বাণিজ্য ও অর্থনীতির চাকা সচল রাখতে, জাতীয় নির্বাচনকে সামনে রেখে, অসহিষ্ণু কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) দুপুরে রাজধানী ঢাকায়, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব কনভেনশন হলে অনুষ্ঠিত এফবিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভায় এ আহবান জানান এফবিসিসিআই সভাপতি। “রাজনীতি যার যার, অর্থনীতি সবার” এই স্লোগান নিয়ে অনুষ্ঠিত হয় এফবিসিসিআইয়ের বার্ষিক সাধারণ সভা।

মাহবুবুল আলম বলেন, “ব্যবসায়ীরা দেশের অর্থনীতির প্রাণ। বাংলাদেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে ব্যবসায়ীরা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছেন।”

তিনি বলেন, “দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে, দেশকে সমৃদ্ধ করতে, সব ভেদাভেদ ভুলে ব্যবসায়ীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করতে হবে।”

“ক্ষুদ্র, মাঝারি ও বৃহৎ শিল্পোদ্যোক্তা থেকে শুরু করে দেশের সব পর্যায়ের ব্যবসায়ীকে ঐক্যবদ্ধ থাকতে হবে;” যোগ করেন এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম।

রাজনৈতিক সহিংসতা ও ভেদাভেদ ভুলে দেশের অর্থনীতিকে সামনের এগিয়ে নিতে, ব্যবসায়ী সম্প্রদায়ের উদ্যোগী হওয়ার জন্য আহবান জানান মাহবুবুল আলম।

এফবিসিসিআই সভাপতি বলেন, “দেশের ব্যবসায়ীরা সুষ্ঠুভাবে নিজ নিজ ব্যবসা পরিচালনা করতে চান। দেশের ব্যবসা, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ সম্প্রসারণের জন্য ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ খুবই জরুরি।”

তিনি বলেন, “বর্তমান বিশ্ব ভূ-রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে সৃষ্ট অর্থনৈতিক সংকটের ফলে বাংলাদেশের সার্বিক অর্থনৈতিক কার্যক্রমে নেতিবাচক প্রভাব ইতোমধ্যে পড়তে শুরু করেছে। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছেন আমাদের ব্যবসায়ীরা।”

মাহবুবুল আলম বলেন, “২০২৬ সালে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ পরবর্তী চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাণিজ্যসংক্রান্ত পরিস্থিতি ও নীতিমালা ক্রমশ আধুনিকায়ন করতে হচ্ছে।”

তিনি বলেন, “এক্ষেত্রে বিভিন্ন ইস্যু; যেমন, ক্রস বর্ডার ট্রেড ও কানেক্টিভিটি, বিনিয়োগ, শুল্ক ও কর ব্যবস্থা, অবকাঠামো, সাপ্লাই চেইন ও লজিস্টিক সাপোর্ট, এনার্জি, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব, চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ও কারিগরি শিক্ষা বিষয়ে সুনির্দিষ্টভাবে বেসরকারি খাতের অবস্থান, মতামত ও সুপারিশমালা নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে তুলে ধরা জরুরি।”

XS
SM
MD
LG