অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

বাংলাদেশ নির্বাচন: শেখ হাসিনা বললেন, স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা ভোটকে অংশগ্রহণমূলক করছে


বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ভোটকে অংশগ্রহণমূলক ও শান্তিপূর্ণ করতে তার দলের স্বতন্ত্র প্রার্থী ৭ জানুয়ারির জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন।

শনিবার (২৩ ডিসেম্বর) আওয়ামী লীগের তেজগাঁওয় কার্যালয় থেকে, ভার্চুয়াল প্লাটফরমে ছয় জেলায় অনুষ্ঠিত জনসভায় ভাষণ দেন শেখ হাসিনা। কুষ্টিয়া, সাতক্ষীরা, নেত্রকোনা, রাঙ্গামাটি এবং বরগুনার বামনা ও পাথরঘাটায় সমাবেশগুলো অনুষ্ঠিত হয়।

ভাষণে শেখ হাসিনা ব্যাখ্যা করেন, কেন আওয়ামী লীগ এবার দলের টিকিট পেতে ব্যর্থ হওয়া প্রার্থীদেরও নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে অনুমতি দিয়েছে।

তিনি বলেন, “এর কারণ হলো, আমরা নির্বাচনে জনগণের অংশগ্রহণ চাই এবং তারা যাতে শান্তিপূর্ণভাবে ভোট দিতে পারে, তা নিশ্চিত করতে চাই।”

আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীসহ সব প্রার্থীকে ভোট চাইতে ঘরে ঘরে যাওয়ার জন্য পরামর্শ দেন আওয়ামী লীগের সভানেত্রী।

শেখ হাসিনা বলেন, “যারা জনগণের ভোটে জিতবে তারাই সংসদ সদস্য হবেন।” তিনি আরো বলেন, তিনি চান শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হোক; যেখানে ভোটাররা তাদের অধিকার সঠিকভাবে প্রয়োগ করবে।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন, “আমরা গণতন্ত্রকে নিরাপদ করতে চাই। কারণ, কোনো দেশে গণতন্ত্র বিরাজ করলে, সে দেশ দ্রুত এগিয়ে যায় এবং আমরা তা প্রমাণ করেছি।”

ভাষণে তিনি জানান যে তার দল জনগণের কল্যাণে দেশের উন্নয়নের গতিকে ধরে রাখতে চায়।

হাসিনা আরো বলেন, “বিএনপি নির্বাচনে আসে না; কিন্তু, প্রতিহত করার নামে তারা ২০১৩ ও ২০১৪ সালের মতো অগ্নিসংযোগ করেছে।” এই প্রসঙ্গে তিনি ট্রেনে আগুন ও রেল ট্র্যাক উপড়ে ফেলার সাম্প্রতিক ঘটনার কথা উল্লেখ করেন।

খালেদা জিয়া ও তারেক রহমান দুর্নীতিসহ বিভিন্ন মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হওয়ায়, বিএনপির নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন তোলেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “খালেদা জিয়া অসুস্থ হলেও তার ছেলে তারেক তাকে দেখতে আসেনি। তিনি সেখান থেকে নির্দেশ দিচ্ছেন এবং বিএনপি নেতারা বাংলাদেশে মানুষ হত্যা করছে।”

বিএনপিকে সন্ত্রাসী দল; আর, জামায়াতকে যুদ্ধাপরাধীদের দল বলে উল্লেখ করেন শেখ হাসিনা। বলেন, “বিএনপি মোটেও রাজনৈতিক দল নয়, এর মিত্র জামায়াতে ইসলামী যুদ্ধাপরাধীদের দল।”

তিনি আরো বলেন, উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে হলে দেশকে যুদ্ধাপরাধী ও সন্ত্রাসী মুক্ত রাখতে হবে।আর বিএনপি ও জামায়াতের হাতে দেশ নিরাপদ নয়।

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “এসব দল দেশের স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাস করে না বলেই, আমি দেশ ও জাতিকে বিপদ থেকে বাঁচানোর জন্য সকলের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।”

শেখ হাসিনা ২০০৯ সাল থেকে পরবর্তী আওয়ামী লীগ সরকারের সাফল্য তুলে ধরেন। তিনি বলেন, “আমরা উন্নয়নশীল দেশ হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছি। আমাদের আরো এগিয়ে যেতে হবে।”

আওয়ামী লীগ সভানেত্রী আরো বলেন যে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে, নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণ তাদের কাঙ্ক্ষিত প্রার্থী বাছাই করবে এবং গণতন্ত্র থাকবে বাধাহীন।

XS
SM
MD
LG