অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

"ভোটকেন্দ্রে ভোটারের উপস্থিতির উপর নির্ভর করছে নির্বাচনের গ্রহণযোগ্যতা" - মাহফুজা আক্তার কিরণ


মাহফুজা আক্তার কিরণ
মাহফুজা আক্তার কিরণ

আগামী ৭ জানুয়ারী বাংলাদেশের দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। বাংলাদেশের প্রধান বিরোধীদল বিএনপি'র নেতৃত্বে ৩৬ টি রাজনৈতিক দল ও ইসলামী আন্দোলন সহ বেশ কিছু ইসলামপন্থী দল এই নির্বাচন বয়কট করেছে।

অতীতের নির্বাচনগুলোর অভিজ্ঞতায় দেখা যায় নির্বাচন বর্জনকারী এই দলগুলোর সম্মিলিত ভোট চল্লিশ শতাংশের কিছু বেশি। এই বিপুল জনগোষ্ঠীর সমর্থনপুষ্ট দলগুলির অংশগ্রহণ ছাড়া, বিশেষ করে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় দু'টি দলের একটি, বিএনপি'র অংশগ্রহণ ছাড়া এ নির্বাচন কতটা অংশগ্রহণমূলক হতে যাচ্ছে তা নিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে প্রশ্ন উঠেছে।

পাশাপাশি বিএনপি ও নির্বাচন বর্জনকারী দলগুলোর দাবি অনুযায়ী তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন করলে তা দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন অনুষ্ঠানের চেয়ে অপেক্ষাকৃত সুষ্ঠু, অবাধ ও নিরপেক্ষ হতো কিনা এই প্রশ্নটিও জোরালোভাবে নানা মহলে আলোচিত হচ্ছে।

এসব বিষয় নিয়ে কী ভাবছেন বাংলাদেশের সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা তা নিয়ে ভয়েস অফ আমেরিকা কথা বলেছে সুশীল সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তিত্বদের সাথে।

এই সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন আতিকুল ইসলাম।

সাক্ষাৎকারঃ জাতীয় নারী ফুটবল দলের সংগঠক ও বাফুফে নারী ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহফুজা আক্তার কিরণ

ভয়েস অফ আমেরিকা: স্বতন্ত্র প্রার্থীদের মনোয়ন বৈধ হবার জন্য ১ শতাংশ ভোটারের সমর্থন জানিয়ে স্বাক্ষর জমা দেয়ার যে বিধান আছে তা কতটা যুক্তিসঙ্গত বা ন্যায্য?

মাহফুজা আক্তার কিরণ: আমার মতে যুক্তিসঙ্গত এই জন্য যে, একজন যখন দলের মনোনয়ন পায় সে তো যোগ্য বলেই দলের মনোনয়ন পায়, আর স্বতন্ত্র যারা দাড়াবে (নির্বাচনে অংশ নেবে) তাদের স্বতন্ত্র হিসেবে কতটুকু গ্রহণযোগ্যতা আছে, আদৌ সে যোগ্যতাসম্পন্ন কিনা এটার জন্য এটা ভ্যালিড, এটা ভেরিফাই করা। না হলে তো যে কেউ দাড়িয়ে যেতে পারবে, তাইনা? এটা আসলে যৌক্তিক আমার মনে হয়।

ভয়েস অফ আমেরিকা: এই নির্বাচনটি তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে হলে কি অপেক্ষাকৃত নিরপেক্ষ, অবাধ ও সুষ্ঠু হতো?

মাহফুজা আক্তার কিরণ: না আমি এটা বিশ্বাস করি না। কারণ হচ্ছে এই সরকারের অধীনে নির্বাচন হলে সেটাও সুষ্ঠু হবে নিরপেক্ষ হবে। তত্ত্বাবধায়কের আন্ডারে নির্বাচন হলেই যে সেটা সুষ্ঠু হবে সেটা আমি বিশ্বাস করি না। কারণ আওয়ামী সরকার যথেষ্ট স্বচ্ছ্তার সাথে কিন্তু তারা নির্বাচন করে যাচ্ছে এবং করছে।

ভয়েস অফ আমেরিকা: বিএনপিকে ছাড়া এ নির্বাচন কতটা অংশগ্রহণমূলক ও গ্রহণযোগ্য?

মাহফুজা আক্তার কিরণ: দেখেন, বিএনপি ছাড়া কিন্ত অনেকগুলো দলই এখানে পার্টিসিপেট করেছে। বিএনপিকে কিন্তু পার্টিসিপেট করতে সেভারেল টাইম বলা হয়েছে। ডাকাও হয়েছে। কিন্তু তারা যদি না আসে। একটা দেশে অনেকগুলো পলিটিক্যাল দল আছে, এখন একটা দল যদি নির্বাচনে অংশগ্রহণ না করে তার জন্য যে নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে না এটা আমি বিশ্বাস করি না। আর গ্রহণযোগ্যতা নির্ভর করবে ভোটারদের অংশগ্রহণের উপর। কত শতাংশ ভোটার আসলো সেটার উপর নির্ভর করবে। নির্বাচন ফেয়ার হবে এ ব্যাপারে কোন সন্দেহ নেই। কিন্ত ভোটাররা ভালো ভাবে কেন্দ্রে যদি আসতে পারে। এখন বিএনপি যে কাজগুলো করছে ভোটারদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছে, সেটা যদি হয় তাহলে তো সমস্যা। ভোটাররা যদি ভালভাবে কেন্দ্রে আসতে পারে তবে এ নির্বাচন অবশ্যই গ্রহণযোগ্য হবে। এবং নির্বাচন ফেয়ার হবে তাতে কোন সন্দেহ নাই।
ভয়েস অফ আমেরিকা: দ্বাদশ জাতীয় সংসদ কতদিন টিকে থাকবে? তিনমাস, ছ'মাস, এক বছর, পূর্ণমেয়াদ ?

মাহফুজা আক্তার কিরণ: পূর্ণ মেয়াদ।

ভয়েস অফ আমেরিকা: আপনি এবার ভোট দিতে যাবেন?

মাহফুজা আক্তার কিরণ: অবশ্যই যাবো।

XS
SM
MD
LG