অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

অবন্তিকার আত্মহত্যা: আম্মান ও দ্বীন ইসলামের আংশিক সম্পৃক্ততা পেয়েছে ডিএমপি


জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ অবন্তিকার আত্মহত্যার ঘটনায় দুজনকে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।
জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ অবন্তিকার আত্মহত্যার ঘটনায় দুজনকে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

বাংলাদেশের জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাইরুজ অবন্তিকার আত্মহত্যার ঘটনায়, তার সহপাঠী রায়হান সিদ্দিকী আম্মান ও সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলামের আংশিক সম্পৃক্ততা পেয়েছে ঢাকা মহানগর পুলিশ (ডিএমপি)।

রবিবার (১৭ মার্চ) দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার খ মহিদ উদ্দিন। এক প্রশ্নের জবাবে অতিরিক্ত কমিশনার বলেন, “প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার আম্মান ও দ্বীন ইসলামের আংশিক সম্পৃক্ততা পাওয়া গেছে।”

দুজনকে কুমিল্লা কোতোয়ালি থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে বলে জানান মহিদ উদ্দিন। তিনি আরো বলেন, “তাদের সম্পৃক্ততার গভীরতা তদন্তের মাধ্যমে নির্ধারিত হবে। আমাদের যা করার কথা ছিলো, আমরা করেছি; এখন কুমিল্লার কোতোয়ালি থানা তদন্ত করবে।”

ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনার জানান, অবন্তিকার মা তাহমিনা শবনম বাদী হয়ে কুমিল্লার কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করেছেন। এই ঘটনায় দুজনের বিরুদ্ধে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগ আনা হয়েছে।

ফেসবুকে সহপাঠী ও বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী প্রক্টরের বিরুদ্ধে অভিযোগ এনে এর আগে গত শুক্রবার(১৫ মার্চ) রাত ১০টার দিকে কুমিল্লার বাসায় গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের শিক্ষার্থী ফাইরুজ অবন্তিকা।

আত্মহত্যার আগে এক ফেসবুক পোস্টে অবন্তিকা বলেছিলেন, তার আত্মহত্যার জন্য তার সহপাঠী রায়হান আম্মান ও সহকারী প্রক্টর দ্বীন ইসলাম দায়ী।

শুক্রবার রাতে আত্মহত্যার খবর ছড়িয়ে পড়লে, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ শুরু হয়। প্রতিবাদের মুখে, তাৎক্ষণিকভাবে সহকারী প্রক্টরকে অব্যাহতি দেয় এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীকে সাময়িক বরখাস্ত করে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এছাড়া, আইন অনুষদের ডিন মাসুম বিল্লাহকে আহ্বায়ক ও আইন কর্মকর্তা রঞ্জন কুমার দাসকে সদস্য সচিব করে চার সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

XS
SM
MD
LG