অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

‘ওবায়দুল কাদের: ‘পাহাড়ে যৌথ অভিযান চলছে, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে’


বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের
বাংলাদেশের সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের

বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা বান্দরবানে শান্তি-শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনার লক্ষ্যে যৌথ অভিযান চলছে বলে নিশ্চিত করেছেন দেশটির সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল ওবায়দুল কাদের। শনিবার (৬ এপ্রিল) সবিবালয়ে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি।

তিনি বলেন, “পাহাড়ে যৌথ অভিযান চলছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলে আসবে। বিক্ষিপ্ত কিছু ঘটনা ঘটেছে, গোটা পাহাড় অশান্ত হওয়ার কোনো কারণ নেই।”

“চীন ও ভারত সীমান্তের কাছে ‘চিন’ নামে একটা স্টেট আছে। ওখানে কেএনএফ এর একটি ঘাঁটি আছে বলে মনে করা হয়। তাদের সঙ্গে আগে আলোচনা হলেও, কেন তারা বিদ্রোহ করলো তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। সেখানে যৌথ অভিযান চলছে;” যোগ করেন ওবায়দুল কাদের।

তবে, সীমান্ত থেকে কোনো বিচ্ছিন্নতাবাদী সন্ত্রাসী সংগঠন এদের মদদ দিচ্ছে বলে মনে করেন না তিনি।

এর আগে শুক্রবার (৫ এপ্রিল) ওবায়দুল কাদের জানিয়েছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামে সশস্ত্র সহিংসতার বিষয়ে সরকার কঠোর অবস্থান নিচ্ছে। তিনি বলেছিলেন, “সেখানে যৌথ অভিযান চলছে। শিগগিরই পরিস্থিতি শান্ত হবে।”

ওবায়দুল কাদের আরো বলেছিলেন, “পার্বত্য চট্টগ্রামে ছোট একটি গ্রুপ সশস্ত্র তৎপরতা শুরু করেছে। এই গ্রুপগুলো রাঙ্গামাটি, খাগড়াছড়িতে নেই। শুধু বান্দরবানে আছে। এই গোষ্ঠীর কিছু তরুণ অস্ত্রশস্ত্রসহ মহড়া দিচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, যে এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যৌথ অভিযান চালাচ্ছে। আশা করা হচ্ছে, অচিরেই পরিস্থিতি শান্ত হবে।

কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ)

বান্দরবানে নতুন সশস্ত্র সংগঠন কুকি-চিন ন্যাশনাল ফ্রন্ট (কেএনএফ) ২০২২ সালের এপ্রিলে আনুষ্ঠানিকভাবে আত্মপ্রকাশ করে। কেএনএফের ঘোষণা ও বিভিন্ন সময়ে গণমাধ্যমের উদ্দেশে দেয়া বক্তব্য অনুযায়ী, বান্দরবান ও রাঙ্গামাটি জেলার অন্তত ছয়টি ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর প্রতিনিধিত্ব করছে তারা।

এ সময় তারা ফেসবুকে রাঙামাটির বাঘাইছড়ি, বরকল, জুরাছড়ি ও বিলাইছড়ি এবং বান্দরবানের রোয়াংছড়ি, রুমা, থানচি, লামা ও আলীকদম উপজেলাগুলোর সমন্বয়ে পৃথক রাজ্যের দাবি করে।

এদিকে, কেএনএফ পাহাড়ে তাদের আস্তানায় সমতলের নতুন জঙ্গি সংগঠন জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়ার সদস্যদের সশস্ত্র প্রশিক্ষণ দিয়েছিল বলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ইতিপূর্বে গণমাধ্যমকে জানিয়েছিল।

সেই আস্তানায় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ২০২৩ সালে অভিযান চালিয়ে জামাতুল আনসার ফিল হিন্দাল শারক্বীয়া ও কেএনএফের বেশ কয়েক সদস্যকে গ্রেপ্তার করে।

XS
SM
MD
LG