অ্যাকসেসিবিলিটি লিংক

পার্বত্য চট্টগ্রাম: সাজেক ভ্যালিতে ডায়রিয়া ও জ্বরে আক্রান্ত শতাধিক মানুষ


বাংলাদেশের হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীদের চিত্র। প্রতীকী ছবি।
বাংলাদেশের হাসপাতালে ডায়রিয়া রোগীদের চিত্র। প্রতীকী ছবি।

বাংলাদেশের পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটির, বাঘাইছড়ি উপজেলার সাজেক ইউনিয়নের (সাজেক ভ্যালি) দুর্গম বেটলিং মৌজার তিনটি গ্রামে ছড়িয়ে পড়েছে ডায়রিয়া ও জ্বর। এতে করে, অরুণ পাড়া, তারুম পাড়া ও নিউথাংনাং পাড়ার প্রায় শতাধিক মানুষ আক্রান্ত হয়েছে। চিকিৎসার অভাবে রয়েছেন তারা।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা না নিলে পরিস্থিতি খারাপের দিকে যাবে। গত এক সপ্তাহ ধরে এসব এলাকার মানুষ জ্বর, কাশি, রক্ত বমি ও ডায়রিয়া আক্রান্ত হচ্ছে বলে তারা জানান।

এই এলাকার আশপাশে কোথাও কমিউনিটি ক্লিনিক বা চিকিৎসা কেন্দ্র নেই। সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা না থাকায় এসব গ্রামে দ্রুত পৌঁছানো যাচ্ছে না মেডিকেল টিম ও চিকিৎসা সরঞ্জাম।

এলাকাবাসী আরো জানান, গ্রামগুলোতে দ্রুত মেডিকেল টিম পাঠানো না গেলে আক্রান্তদের অবস্থা আশঙ্কাজনক হয়ে যাবে। তাই দ্রুত মেডিকেল টিম পাঠানোর দাবি জানিয়েছেন তারা।

রাঙ্গামাটির সিভিল সার্জন ডা. নুয়েন খিসা বলেন, ডায়রিয়ার কারণে নয় বরং জ্বরের কারণে আক্রান্তরা কিছুটা দুর্বল হয়ে পড়ছেন । সেখানে উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মী ও ব্র্যাকের একটি টিম কাজ শুরু করেছে। প্রয়োজনে আরো মেডিকেল টিম পাঠানো হবে বলে জানান সিভিল সার্জন।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শিরীন আক্তার জানান, এলাকাটি খুবই দুর্গম। সেখানে কোনো বিশুদ্ধ পানির উৎস নেই। তাই বর্ষা মৌসুমে ডায়রিয়াসহ বিভিন্ন রোগের প্রকোপ দেখা দেয়।

তিনি আরো বলেন, “সেখানে যাওয়ার জন্য কোনো সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা নেই। দ্রুত মেডিকেল টিম পাঠাতে হলে সেনাবাহিনীর হেলিকপ্টারের সাহায্য প্রয়োজন। বিষয়টি রাঙ্গামাটি জেলা প্রশাসকে জানানো হয়েছে।”

উল্লেখ, গত ২০১৬ ও ২০২০ সালে সাজেকের এসব গ্রামে ডায়রিয়া ও হামে আক্রান্ত হয়ে ৯ শিশুসহ ১৫ জন গ্রামবাসীর মৃত্যু হয়।

XS
SM
MD
LG